যে কোন যৌন বা স্বাস্থ্য সমস্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডা.মনিরুজ্জামান এম.ডি স্যার। কল করুন- 01707-330660

মাসআলাঃ-১১. সহবাসের অযুর হুকুম…

এটা ওয়াজিব নয়। বরং তা উমার (রাঃ)-এর হাদীসের প্রেক্ষিতে সুন্নাতে মুআক্বাদা।

“উমার (রাঃ) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-কে জিজ্ঞেস করলেন, আমাদের কেউ কি অপবিত্র অবস্থায় ঘুমাতে পারে? তিনি বললেন, হ্যাঁ আর যদি সে চায় অযু করে নিবে।” [1]

আর এটাকে আয়েশা (রাঃ)-এর হাদীস মজবুত করে।

“আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কোন পানি স্পর্শ করা ছাড়াই অপবিত্র অবস্থায় ঘুমাতেন। এমনকি তিনি পরে ঘুম থেকে উঠতেন এবং গোসল করতেন।”[2]

আর তার থেকে অন্য বর্ণনায় আছেঃ

“আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অপবিত্রবস্থায় রাত্রী যাপন করতেন, তারপর বেলাল তার নিকট আসত এবং তাঁকে সালাতের সংবাদ দিত। অতঃপর তিনি উঠতেন এবং গোসল করতেন। আর আমি তার মাথা থেকে নির্গত পানির দিকে তাকাতাম। তারপর তিনি মসজিদে বের হতেন আর আমি ফজরের সালাতে তার আওয়াজ শুনতাম। অতঃপর তিনি রোযা অবস্থায় থাকতেন। রাবী মুতাররাফ বলেছেন, আমি আমির-কে বললাম, রামাযান মাসেও কি? তিনি বলেন, হ্যাঁ রামাযান মাসে বা অন্য মাসে একই রকম হত।”[3]

আপনি পড়ছেনঃ বাসর রাতের আদর্শ বই থেকে


[1]  ইমাম ইবনু হিব্বান তার উসাতায ইবনে খুযাইমা স্বীয় (সহীহ) গ্রন্থে (২৩২) পৃষ্ঠা নিয়ে এসেছেন।

[2]  ইবনু আবী শাইবাহ (১/৪৫/১), আবূ দাঊদ, তিরমিযী, ইবনু মাজাহ, নাসাঈ ইশরাতুন নিসা (৭৯-৮০) পৃষ্ঠা মুসনাদে আবূ ইয়ালা (২২৪/২) এবং বাইহাকী এবং হাকিম বর্ণনা করে সহীহ বলেছেন। আমিও সহীহ আবূ দাউদ এর (২২৩) নম্বরে বর্ণনা করেছি।

আর আফীফুদ্দীন আবূল মা’আলী ষাট হাদীসের (৬) নম্বরে এই শব্দ দ্বারা বর্ণনা করেছেনঃ যদি তিনি শেষ রাত্রে জাগতেন এবং স্ত্রীর নিকট প্রয়োজন হত তাহলে প্রত্যাবর্তন করতেন তারপর গোসল করতেন। এ সানাদে আবু হানিফা (রাঃ) রয়েছেন।

আর ইবনু শায়বাহ ইবনে আব্বাস থেকে হাসান সানাদে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন, যদি কোন ব্যক্তি সহবাস করে, অতঃপর পুনরায় ইচ্ছা করে, তাহলে গোসল বিলম্বিত করাতে কোন দোষ নেই।

সাঈদ বিন মুসায়্যাব থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, যদি অপবিত্র ইচ্ছা করে তাহলে অযু করার পূর্বে ঘুমাবে। এ হাদীসের সানাদ সহীহ। আর এটাই জামহুরের মাযহাব।

[3]  ইমাম ইবনু আবী শাইবাহ শা’বী বর্ণনা থেকে তিনি মাসরুক থেকে, তিনি আয়েশা থেকে (২/১৭৩/২) পৃষ্ঠা সানাদ সহীহ। আহমাদ (৬/১০১ ও ২৫৪) পৃষ্ঠা মুসনাদে আবূ ইয়ালা (২২৪/১) পৃষ্ঠা।

Syed Rubelযৌন বিষয়ক নিবন্ধনমাসআলাঃ-১১. সহবাসের অযুর হুকুম... এটা ওয়াজিব নয়। বরং তা উমার (রাঃ)-এর হাদীসের প্রেক্ষিতে সুন্নাতে মুআক্বাদা। “উমার (রাঃ) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-কে জিজ্ঞেস করলেন, আমাদের কেউ কি অপবিত্র অবস্থায় ঘুমাতে পারে? তিনি বললেন, হ্যাঁ আর যদি সে চায় অযু করে নিবে।” আর এটাকে আয়েশা (রাঃ)-এর হাদীস মজবুত করে। “আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত,...Amar Bangla Post