যে কোন যৌন বা স্বাস্থ্য সমস্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডা.মনিরুজ্জামান এম.ডি স্যার। কল করুন- 01707-330660

স্ত্রীর সাথে হাসি তামাশা করার বিধানস্ত্রীর সাথে কেমন আচরণ করা উচিৎ তা আমাদের সমাজের অনেক স্বামীই জানেন না। এখানে স্ত্রীর সাথে স্বামীর কিছু আচরণ তুলে ধরা হলোঃ—

১. পরস্পরকে সালাম করা উচিৎ, এতে মহব্বত বৃদ্ধি পায়। যে ব্যক্তি প্রথমে সালাম করে সে অধিক পুণ্যের অধিকারী হয়। চলন্ত ব্যক্তি বিশ্রাম ব্যক্তিকে (বা গৃহে প্রবেশকারী গৃহে অবস্থানকারী ব্যক্তিকে) এবং অল্প বয়স্ক অধিক বয়স্ককে সালাম করবে। মুসাফাহার দ্বারা অন্তর পরিস্কার হয় এবং গুনাহ মাফ হয়।

২. কারো কাছে গেলে সালাম-কালাম (বা যে কোনভাবে) নিজের আগমন বার্তা তাকে জানিয়ে দাও। না জানিয়ে চুপ করে এমন জায়গায় বসে থেক না, যাতে তোমার আগমনের খবর সে জানতে না পারে।

৩. যে কোন লোকের সাথে এমন হাসি মুখে দেখা করবে, যাতে সে খুশি হয়ে যায়।

৪. দুনিয়াতে স্ত্রীর চেয়ে বড় বন্ধু আর কেহ নেই। বন্ধুর সাথে কথা বলাও ইবাদত। কারণ, মুমিনের মন সন্তুষ্ট করা ইবাদত।

৫. হাদীসে বর্ণিত আছে, স্ত্রীর মুখে এক গ্রাস খাদ্য দিলেও তা সদকা হিসেবে গণ্য হবে এবং পুণ্য পাওয়া যাবে।

৬. স্বামীর মর্যাদাবোধের দাবী হল, স্ত্রী মহর রক্ষা করে দিলেও তাঁর ক্ষমা গ্রহণ না করা। স্ত্রীর অনুগ্রহ গ্রহণ করা উচিৎ নয়, বরং স্ত্রীকেই দয়া করা উচিৎ। সে ক্ষমা করে দিলেও মহর আদায় করে দেয়াই স্বামীর কর্তব্য। নারীর দয়া গ্রহণ করা পুরুষের জন্য গৌরবের বিষয় নয়।-স্বামী স্ত্রীর মধুর মিলন বই থেকে।

Syed Rubelছেলেদের দুনিয়াস্ত্রীর সাথে কেমন আচরণ করা উচিৎ তা আমাদের সমাজের অনেক স্বামীই জানেন না। এখানে স্ত্রীর সাথে স্বামীর কিছু আচরণ তুলে ধরা হলোঃ— ১. পরস্পরকে সালাম করা উচিৎ, এতে মহব্বত বৃদ্ধি পায়। যে ব্যক্তি প্রথমে সালাম করে সে অধিক পুণ্যের অধিকারী হয়। চলন্ত ব্যক্তি বিশ্রাম ব্যক্তিকে (বা গৃহে প্রবেশকারী গৃহে অবস্থানকারী...Amar Bangla Post