Home / যৌন জীবন (page 65)

যৌন জীবন

যৌন জীবনযৌন জীবন, মানুষের জীবনের শ্রেষ্ঠ কাল। অনেকের যৌন জ্ঞান না থাকার কারনে সাংসারিক জীবনে অসুখী হয়ে থাকেন। তাই যৌন জীবনকে সুন্দর ভাবে উপভোগ করতে এসম্পর্কে জানার প্রয়োজন। তাই যৌন বিষয়ক বিজ্ঞান ও ধর্মীয় দৃষ্টিকোন নানান আর্টিকেল ও বই পড়ুন। যা আপনার যৌন জীবনকে আনন্দময় করে তুলতে সাহায্য করবে। পাশা-পাশি আপনার  যৌন স্বাস্থ্য সমস্যায় পরামর্শ ও চিকিৎসা নিতে পারবেন। ডাক্তারের সাথে কথা বলতে কল দিন 01707330660 এ।

মাসিকের রক্ত রঙ ও পরিমাণ

মেয়েদের মাসিকের রক্ত এর রঙ এক প্রকারের হয় না বরং বেশ কয়েকটি কালারের হয়। মাসিকের রক্ত ৬ রঙের হতে পারে। জেনে নিন মাসিকের রক্তের পরিচয়— ১। লাল । ২। কালো। ৩। হলুদ । ৪। সবুজ। ৫। স্বেত মিশ্রিত লাল ও ৬। কালো মিশ্রিত লাল। মাসিকের রক্তের পরিমাণ অবস্থাভেদে দুই হতে তিন …

Read More »

বেশি রক্তস্রাবের কারণ ও প্রতিকার

যে সকল মেয়েদের স্বাভাবিক নিয়মে ঋতুস্রাব হয়, তাদের দৈহিক স্বাস্থ্য দিন দিন উন্নত হতে থাকে। যাদের অতি বেশি রক্তস্রাব হয়, তাদের রোগ বলে মনে করতে হবে। এই রোগকে অতিস্রাব বা রক্তপ্রদর বলা হয়। যাদের শরীর দুর্বল, রক্ত কম, স্বাস্থ্য রোগা, তারাই এক রোগে বেশি ভোগে। মেয়েদের জরায়ুর ভিতরে ঝিল্লিযুক্ত অংশের …

Read More »

হায়েযের কতিপয় মাসআলা

হায়েয চলাকালীন সকল প্রকার নামায-রোজা আদায় করা নিষেধ। তবে নামায ও রোযার মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে। হায়েযের কারণে নামায একেবারে মাফ হয়ে যায়, কিন্তু রোযা সাময়িকের জন্য হয়, পরবর্তীতে আদায় করতে হয়। কিন্তু নামায আর কখনো আদায় করতে হয় না। সুন্নত বা নফল নামাযরত অবস্থায় হায়েয দেখা দলে, সাময়িকের জন্য …

Read More »

নেফাস বিষয়ক কিছু কথা

  সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর মহিলাদের যোনি থেকে যে রক্তস্রাব হয়, তাকেই নেফাস বলে। এক গর্ভে একাধিক সন্তান ভূমিষ্ঠ হলে (৬ মাসের মধ্যে) প্রথম বাচ্ছা ভূমিষ্ঠের পর থেকেই নেফাসের মেয়াদ গণনাকরতে হবে। দ্বিতীয় সন্তান থেকে নয়। নেফাসের সর্বোচ্চ মেয়াদ ৪০ দিন, নিম্মে মেয়াদের কোনো সময় সীমা নেই। দু-চার দিন বা …

Read More »

নেফাসের কতিপয় মাসআলা

  ৪০ দিনের কমে নেফাসের রক্তস্রাব বন্ধ হয়ে গেলে, তাড়াতাড়ি গোসল করে নামায পড়তে আরম্ভ করবে। যদি গোসল করলে রোগ বৃদ্ধির সম্ভবনাথাকে, তাহলে তায়াম্মুম করে নামায আদায় করবে। সাবধান! কোনো ক্রমেই নামায ত্যাগ করবে না। নামায ত্যাগের কোনো সুযোগ নেই। অনেক এলাকায় এ প্রচলন আছে যে, ৪০ দিন দিনের কম …

Read More »

হায়েয – নেফাসেরত বিবিধ মাসায়েল

  হায়েয নেফাস চলাকালিন সময়ে মসজিদে প্রবেশ করা যাবে না। অর্থাৎ গোসল ওয়াজিব থাকা অবস্থায় মসজিদে প্রবেশ, কা’বা শরীফের তাওয়াফ করা, কুরআন শরীফ তিলাওয়াত ও স্পর্শ করা সবই নিষেধ। তবে কুরআন শরীফ গেলাফ দ্বারা মোড়ানো থাকে বা আলগা কাপড় দ্বারা পেচানো থাকে, তাহলে প্রয়োজনে স্পর্শ করা যাবে। নাপাক হালতে কুরআনের …

Read More »

ইস্তেহাযার পরিচয়

স্ত্রী-লোকের যৌনাঙ্গ থেকে যে রক্ত তিন দিন থেকে কম বা দশ দিনের চেয়ে বেশী অথবা নেফাসের সময় চল্লিশ দিনের বেশি এসে থাকে, আরবী ভাষায় তাকে ইস্তেহাযা বলে। নয় বছরের পূর্বে কোনো মেয়ের রক্ত এলে-সেটা ইস্তেহাযার হুকুম। সন্তান পেটে থাকাবস্থায় যদি রক্ত দেখা দেয়, সেতাও ইস্তেহাযা। সন্তান জম্মের সময় বা জম্মের …

Read More »

ইস্তেহাযার হুকুম ও মাসায়েল

হায়েয নেফাসের ন্যায় ইস্তেহাযা চলাকালিন নামায রোযা মাফ হয় না। নামায রোযা আদায় করতে হয় এবং সহবাস করাও জায়েয। ইস্তেহাযা বন্ধ হলে গোসল করা ওয়াজিব নয়। ইস্তেহাযা থাকাকালীন প্রত্যেক ফরয নামাযের ওয়াক্তে নতুন ওযু করবে এবং এর দ্বারা ফরয, সুন্নত, নফল ইত্যাদি সর্বপ্রকার নামাজ পড়তে পারবে। ওয়াক্ত শেষ হওয়ার সাথে …

Read More »

গর্ভপাত ও এম আর বিষয়ক মাসায়েল

গর্ভপাত হলে যদি সন্তানের হাত-পা ইত্যাদি তৈরী হয়ে থাকে, তাহলে সেটাকে বাচ্ছা ধরা হবে এবং যে রক্ত বের হবে সেটাকে নেফাসের রক্ত বলে বিবেচিত হবে।সন্তানকে দাগন-কাফন দিতে হবে। পক্ষান্তরে যদি অঙ্গ প্রত্যঙ্গ প্রকাশ না পায়, তাহলে যে রক্ত বের হয়েছে তা নেফাসের রক্ত বলে গণ্য হবে না। বরং দেখতে হবে …

Read More »

ধ্বজভঙ্গ পুরুষের পরিচয়

আরবী ভাষায় ধ্বজভঙ্গ পুরুষকে ইন্নীন বলা হয়। ধ্বজভঙ্গ রোগের অনেক কারণ থাকলেও এ রোগের চিকিৎসা সম্ভব। চিকিৎসার মাধ্যমে পূর্ণসুস্থতা লাভ সম্ভব। সকল রোগীর উচিৎ অভিজ্ঞ হেকিমদের স্মরণাপন্ন হওয়া। ধ্বজভঙ্গ রোগ চেনার উপায় যেসব পুরুষদের বীর্য খুব কম সৃষ্টি হয়। আর যেটুকু সৃষ্টি হয়, তাও আবার পাতলা। মজা স্বাদ অনুভব করা …

Read More »