Home / ইসলাম / ইসলাম ও সমাজ / বিবাহিত নারী পুরুষের ব্যভিচারের শাস্তি

বিবাহিত নারী পুরুষের ব্যভিচারের শাস্তি

ব্যভিচারের শাস্তিআমাদের সমাজের অনেক নারী পুরুষই বিবাহের পরেও পুরুষ পরনারী এবং নারী পরপরুষের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং যৌনাচারে লিপ্ত হয়। যা ইসলাম ও সুস্থ সমাজের পরিপন্থী। এরকম অপরাধের জন্য আমাদের দেশে আইনের শাস্তি আছে এবং ইসলামেরও ভয়াবহ শাস্তির বিধান রয়েছে। এখানে রাসূল (সাঃ) বিবাহিত নারী পুরুষকে ব্যভিচারের কারণে যে শাস্তি দিয়েছেন তা তুলে ধরা হয়েছে।


মিয়াত্তায় বর্নিত হয়েছে—

একবার বনী আসলাম গোত্রের এক ব্যক্তি হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রাঃ) এর কাছে এসে বললো, আমি ব্যভিচারে লিপ্ত হয়েছি। হযরত আবু বকর (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি একথা আর কাউকে বলেছো? সে বললো, না। তখন হযরত আবু বকর (রাঃ) বললেন, তুমি আল্লাহর কাছে মাফ চাও এবং গোপনীয়তা রক্ষা করো। আল্লাহ তোমার দোষ গোপন রাখবেন এবং তোমার তওবা কবুল করবেন। এ কথায় সে আশ্বস্ত না হয়ে হযরত ওমর ইবনু খাত্তাব (রাঃ) এর নিকট এলো এবং পূর্বের মতো বললো। হযরত ওমর (রাঃ) ও হযরত আবু বকরের মতো পরামর্শ দিলেন। কিন্তু সে কিছুতেই আশ্বস্ত হতে পারলো না। অগত্য নবী করীম (সাঃ) এর নিকট এলো এবং বললো, আমার দ্বারা ব্যভিচার সংঘটিত হয়েছে। রাসূল মুখ ফিরিয়ে নিলেন। যখন সে তাঁর কথার উপর জিদ ধরে রইলো, তখন নবী করীম (৯সাঃ) তাঁর পরিবারের লোকদের ডাকালেন এবং জিজ্ঞেস করলেন, এ কি পাগল? এখন কি ও পাগলামী করছে? তাঁরা উত্তর দিলো, হে আল্লাহর রাসূল! সে সম্পূর্ণ সুস্থ।

রাসূলে আকরাম (সাঃ) তাকে জিজ্ঞেস করলেন , তুমি কি বিবাহিত না অবিবাহিত? সে উত্তর দিলো, আমি বিবাহিত। তখন রাসূলে আকরাম (সাঃ) তাকে পাথর নিক্ষেপে মৃত্যুদন্ড (রজম) দিলেন।

বুখারী শরীফে বর্ণনায় আছে—

বনী আসলাম গোত্রের এক ব্যক্তি নবী করীম (সাঃ) এর নিকট এসে ব্যভিচারের স্বীকারোক্তি করলো। রাসূল (সাঃ) তাকে জিজ্ঞেস করলেন , তোমাকে তো পাগলামীতে পায়নি? সে জবাব দিলো, না। তিনি আবার জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি বিবাহিত? সে বললো, হ্যাঁ। তখন নবী করীম (সাঃ) এর নির্দেশে তাকে জানাযার স্থানে পাথর নিক্ষেপে মৃত্যুদন্ড দেয়া হলো। যখন   পাথর নিক্ষেপের ফলে দিক বিদিক জ্ঞানশুণ্য হয়ে সে দৌড়ে পালাতে লাগলো, তখন তাকে ধরে এনে আবার পাথর নিক্ষেপ করা হলো, যতোক্ষণ না সে মৃত্যবরণ করলো। নবী করীম (সাঃ) ঘটনা শুনে তাঁর সম্পর্কে ভালৈ কথা বললেন এবং তাঁর নামাযে জানাযা পড়ালেন।

আবু দাউডে (অতিরিক্ত আছে, (নবী করীম বললেন) ‘যার হাতে আমার প্রাণ তাঁর শপথ করে বলছি, অবশ্যই সে এখন জান্নাতের ঝর্ণাধারায় অবগাহন করছে।”

মুয়াত্তায় বলা হয়েছে, এক মহিলা রাসূল (সাঃ) নিকট এসে বললো, আমি যিনা করেছি এবং যিনার কারণে গর্ভবতী হয়েছি। নবী করীম (সাঃ) তাকে বললেন, তুমি চলে যাও, সন্তান প্রসব হলে এবং তাঁর দুধপান করানোর সময় শেষ হলে এসো। যখন তাঁর সন্তানের দুধ পানের মেয়াদ শেষ হলো তখন সে রাসূল (সাঃ) এর দরবারে এসে উপস্থিত হলো। তিনি বললেন, তোমার এ সন্তানকে কারো দায়িত্বে দিয়ে দাও। যখন সে সন্তানকে অন্য একজনের দায়িত্বে রেখে এলো, তখন তাকে পাথর নিক্ষেপে হত্যার নির্দেশ দেয়া হলো। তাঁর জন্য বুক সমান গভীর এক গর্ত খুঁড়া হলো এবং তাকে সেখানে দাঁড় করিয়ে পাথর নিক্ষেপে হত্যা করা হলো। অতঃপর নবী করীম (সাঃ) তাঁর জানাযার নামায পড়ালেন। হযরত ওমর (রাঃ) আরজ করলেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আপনি তাঁর জানাযা নামায পড়লেন? এতো ব্যভিচারিনী। তিনি বললেন,এ মহিলা এমন তওবা করেছে তা যদি পৃথিবীবাসীর মধ্যে ভাগ করে দেয়া হয় তবে সকলের জন্য তা যথেষ্ট হবে।

এর চেয়ে বড় আর কি হতে পারে যে, সে (আল্লাহর ভয়ে) নিজের জীবন দিয়ে দিয়ে দিলো।

নাসাঈ শরীফে (আরো) আছে—

রাসূল তাকে পাথর নিক্ষেপ করতে এলেন এবং তাকে লক্ষ্য করে সজোরে একটি পাথর নিক্ষেপ করলেন। তখন তিনি গাধার ওপর সওয়ার ছিলেন।

উপরোক্ত আলোচনার আলোকে নিন্মোক্ত মাসয়ালা গুলো জানা যায়—

মাসয়ালা-১. যাকে পাথর নিক্ষেপে হত্যা করা হবে তাকে বেত্রাঘাত বা কষাঘাত করা যাবে না।

মাসয়ালা-২.  পাগলের স্বীকারোক্তি গ্রহণ যোগ্য নয়। কেননা নবী করীম (সাঃ) এর বাণী-“সে কি পাগলামী করছে?”

মাসয়ালা-৩. কোনো অপরাধ করে গোপনে আল্লাহর নিকট তওবা করলে তিনি তা মা’ফ করে দেন। যেমন হযরত আবু বকর ও ওমর (রাঃ) পরামর্শ দিয়েছিলেন।

মাসয়ালা-৪. মুয়াত্তার বর্ণনা থেকে বুঝা যায়, যিনার স্বীকৃতি একবার করলেই তাকে শাস্তি দেয়া যাবে। বার বার না করলেও চলবে।

সূত্রঃ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর বিচারালয় বই থেকে।

লেখকঃ ইমাম আব্দুল্লাহ ইবনু মুহাম্মদ আল কুরতুবী (রহঃ)।

About Syed Rubel

Creative Writer/Editor And CEO At Amar Bangla Post. most populer bloger of bangladesh. Amar Bangla Post bangla blog site was created in 2014 and Start social blogging.

Check Also

আসুন গান-বাজনা থেকে তাওবা করি

বর্ণনা ইসলামে গান-বাজনা হারাম হলেও এ ব্যাপারে কিছু বিজ্ঞজনের ভিন্ন মত অনেককেই বিভ্রান্ত করে। আজকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: