Breaking News
Home / বই থেকে (page 3)

বই থেকে

দুনিয়াতে আসার পরও চিল্লার কথা হাদীসে আছে

তারা এখন বলে যে, সাত চিল্লা দেয়াটা মায়ের গর্ভের ভিতরের কথা। মায়ের গর্ভে থাকতে আমরাও দিয়ে এসেছি কিন্তু এখন কেন দিবো? এখন তো আমরা আর মায়ের গর্ভে নেই, বরং দুনিয়াতে আছি। তাদের এই প্রশ্নের জবাবে উপস্থিত আছে মহানবী সা. এর রি হাদিস মুবারক। ইরশাদ হয়েছে : “আমার উম্মতের মধ্যে যে …

Read More »

প্রত্যকেই স্বীয় মায়ের গর্ভে সাত চিল্লা দিয়ে আসে

তাবলীগ বিরোধীরা যখন দেখল যে, চিল্লার কথাও পবিত্র কুরআনে আছে। হযরত মুসা আ. তুর পাহাড়ে চিল্লা দিয়েছেন। এখন বলে যে, হযরত মুসা আ. এর চিল্লার কথা আছে এটা মানলাম। কিন্তু তিনি তো নবী ছিলেন, এজন্য চিল্লা দিয়েছিলেন। আমরা তো নবী নই। আমরা চিল্লা দিবো কেন? এর জবাব বিভিন্ন আয়াতে এবং …

Read More »

চল্লিশ দিনের চিল্লার কথা কুরআন-হাদীসে আছে

তাবলীগ বিরোধীরা যখন দেখল যে, ছয় উসূলও মনগড়া কিছু নয়; বরং তা কুরআন—হাদীস সমর্থিত বিষয়। তখন তারা বলতে শুরু করল : নবী তাবলীগ করেছেন ঠিক আছে কিন্তু নবীর তাবলীগ তো চল্লিশ দিনের ছিল না। গাট্টিওয়ালারা এটা মনগড়াভাবে তৈরি করেছে। এজন্য এটা ইসলামের তাবলীগ নয়। চল্লিশ দিনের কথা নাকি কুরআন—হাদীসে নেই। …

Read More »

গাট্টিওয়ালাদের ছয় কথায় রোযা-হজ্জ আছে কি না?

এখন আমরা দেখব যে, গাট্টিওয়ালা তাবলীগীদের কথায় রমযানের রোযা আর হজ্জ আছে কি না? তারা যে ছয় উসূল বলেন, তাঁর তিন নাম্বার উসূল ছিল ‘ইলম’। আর ইলম বলা হয় : কুরআন-হাদীসের জ্ঞানকে। আর কুরআন-হাদীস  গ্রহণ করলে, হজ্জ গ্রহণ করল না বাদ দিল? কুরআনে-হাদীস গ্রহণ করলে রোযা গ্রহণ করল না বাদ …

Read More »

রোযা-হজ্জ ছাড়া শুধু ছয় কথার দ্বারা বেহেশতে যাবে কিভাবে?

এখন দেখা গেল যে, ভহয় উসূলও কুরআন-হাদীসের বাইরে মনগড়া কিছু নয়। বরং এটাও কুরআন-হাদীসেরই সুস্পষ্ট নির্দেশনা । কিন্তু প্রশ্ন হল : ছয় উসূল থেকে রোযা হজ্জ বাদ গেল কেন। ইসলামের মৌলিক স্তম্ভের অন্যতম রোযা-হজ্জ বাদ দিয়ে শুধু ছয় কথার দ্বারা বেহেশতের যাবে কিভাবে? এর জবাব বুঝার আগে একটি ভূমিকা বুঝা …

Read More »

তাবলীগের ছয় উসূল না মানলে মুমিন না কাফির

তাবলীগের উপর আরেক প্রশ্ন আসে, আচ্ছা বুঝলাম ঈমানদারদেরকে ঈমানের দাওয়াত দেওয়ার জন্য তাবলীগের দরকার আছে। কিন্তু ছয় উসূল পেলেন কোথায়? কয়েকবছর আগে নরসিংদী জেলার ‘সাপমারা’ বাজারে আরেকটা বহস হয়েছিল। আমি গুনাহগার সেখানেও উপস্থিত ছিলাম। তাবলীগ যাদের গায়ে সয়না তাদের পক্ষ থেকে আমাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, “তাবলীগের ছয় উসূল যারা মানেন …

Read More »

তাবলীগে বাঁধা দেয়া কার কাজ?

আল্লাহর পথে তাবলীগ বাঁধা দেয়া কার কাজ? পূর্বে বলা হয়েছে, দুই দল শয়তান রয়েছে যারা মানুষদেরকে জাহান্নামের দিকে ডাকে এবং মহান আল্লাহর হক পয়গাম মানুষের কাছে পৌঁছেতে বাঁধা দেয়। একদল জীন শয়তান, আরেক দল মানুষ শয়তান। সুতরাং তাবলীগ করে কারা আর বাঁধা দেয় কারা? এই দু প্রশ্নের জবাব এখন সুস্পষ্ট …

Read More »

উম্মতকে তাবলীগের দায়িত্ব অর্পণ

মহান আল্লাহর উপরোক্ত ঘোষণা ও সতর্কবাণীর কারণে মহানবী সা. বিদায় হজ্জের ভাষণের শেষে সে হজ্জে অংশগ্রহণকারী সকল মুসলমানদেরকে সামনে নিয়ে বলেছিলেন : আরবী….. অর্থ : “আল্লাহর কাছ থেকে আমার কাছে আসা সব কথা আমি কি তোমাদের কাছে তাবলীগ করেছি? যথাযথভাবে পৌঁছে দিয়েছি? তখন উপস্থিত সোয়া লক্ষ সাহাবায়ে কিরামগণ সমস্বরে বলে …

Read More »

তাবলীগ করার জন্য রাসূলুল্লাহ সা.কে আল্লাহর নির্দেশনা

দ্বিতীয় অধ্যায় দাওয়াত ও তাবলীগ প্রসঙ্গ তাবলীগ করার জন্য রাসূলুল্লাহ সা.কে আল্লাহর নির্দেশনা— আরবী…… অর্থ : “হে রাসূলে কারীম সা.! আপনার মহান প্রভুর পক্ষ থেকে আপনার নিকট যা অবতীর্ণ করা হয়, তা আমার বান্দাদের কাছে তাবলীগ করুন বা পৌঁছাতে থাকুন। (আল্লাহর নাযিলকৃত বিষয়গুলো মানুষের কাছে তাবলীগ করুন) যদি একটা কথাও …

Read More »

দুই দল শয়তান মানুষকে জাহান্নামের দিকে ডাকে

মহান আল্লাহ তাআলা হযরত আদম-হাওয়াকে বেহেশত হতে দুনিয়াতে পাঠানোর আগেই ইবলিসকে বেহেশতে থেকে বিতাড়িত করেন। যার ফলে তখন  থেকেই ইবলিস ও তাঁর চেলারা সকলে মিলে বনী আদম তথা মানবজাতিকে জাহান্নামের দিকে ডাকতে থাকে। আর নবী এবং নায়েবে নবীরা আদম সন্তানদেরকে জান্নাতের দিকে আহ্বান করেন। শয়তান যখন তাঁর কৃতকর্মে কিছুটা সফলতা …

Read More »