যে কোন যৌন বা স্বাস্থ্য সমস্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডা.মনিরুজ্জামান এম.ডি স্যার। কল করুন- 01707-330660

সমস্যাঃ মনিটর এ display আসেনা, কিন্তু বারবার BeepSound দিচ্ছে?

সমাধানঃ Graphises Card অথবা Ram টি খুলে পরিস্কার করে নির্দিষ্ট স্থানে সঠিক ভাবে লাগতে হবে। এতে যদি কোন কাজ না হয়, তবে একটি ভালো Graphises Card লাগিয়ে দেখা যেতে পারে। ফলে Graphises Card টি নষ্ট হয়েছে কিনা তা বুঝা যাবে।

সমস্যাঃ মনিটর G-Display আসেনা এবং কোন রকম শব্দও শোনা যাচ্ছে না?

সমাধানঃ আমরা জানি যে, কম্পিউটারে অন করার পর প্রসেসর একটি বিপ সাউন্ড দেয় এবং এর সাথে সাথেই মনিটর এ ডিসপ্লে দেখা যায়। তাই প্রথমেই ইহা লক্ষ্য  করতে হবে – প্রসেসর যদি বিপ সাউন্ড না দেয় তবে ইহা খুলে আবার সঠিক ভাবে নির্দিষ্ট স্থানে বসাতে হবে। প্রয়োজনে একটি ভালো প্রসেসর  লাগিয়ে চেক করা যেতে পারে।

সমস্যাঃ মনিটর-এ ডিসপ্লে আসে কিন্তু কালার ঠিক নেই?

সমাধানঃ মনিটর এর সিগন্যাল ক্যাবল থেকে কোন একটি কালার (লাল, নীল বা সবুজ) পাচ্ছে না। অর্থাৎ সিগন্যাল ক্যাবল এর কোন একটি পিন ভেঙ্গে গেছে বা লুজ হয়ে আছে। এই অবস্থায় সিগন্যাল ক্যাবল Repair করতে হবে। এছাড়াও মনিটরের ডিসপ্লে সার্কিটেও সমস্যা হতে পারে। প্রয়োজনে মনিটর টি Repair করতে হবে।

সমস্যাঃ মনিটর কিছুক্ষণ চলার স্ক্যান ধীরে ধীরে সাদা হতে থাকে?

সমাধানঃ এটি সাধারণত মনিটরের হাইজ ভোল্টেজ সমস্যার কারণে হয়ে থাকে। এই ক্ষেত্রে মনিটর এর পাওয়ার সেকশন এবং বিশেষ করে Error Message জনিত সমস্যা কম্পিউটার অন করার পর বিভিন্ন ধরণের Error Message আমরা সচারচর দেখে থাকি,

যেমনঃ  "HARD DISK FAILURE" এই Message টি দ্বারা সরাসরি Hard Disk এর ক্রটির কথা বুঝালেও প্রকৃত পক্ষে Hard Disk এর ক্রটি নাও থাকতে পারে।

এই ক্ষেত্রে প্রথমে লক্ষ্যনীয় যে, Monitor এ Hard Disk Show করচ্ছে কিনা। যদি না করে তবে Hard Disk এর Jumper সেটিং এবং IDE Cable টি সঠিক ভাবে আছে কিনা তা দেখতে হবে, প্রয়োজনে বদলাতে হবে।  

"HARD DISK CONTROLLER FAILED"

Hard Disk Cable টি সঠিক  ভাবে বসানো আছে কিনা দেখতে হবে।

IDE Cable টি Loose Connection হতে পারে। IDE Cable টি ক্রটি যুক্ত হতে পারে। প্রয়োজনে বদলিয়ে দেখতে হবে।

"Boot Disk Failure, Insert the System Disk and Press any Key"

সম্ববত Hard Disk পাচ্ছে না। তাই প্রথমেই Hard Disk – এর জাম্পার সেটিং লক্ষ্য করতে হবে। Hard Disk-এর ডাটা ক্যাবলটি খুলে অথবা বদলিয়ে দেখা যেতে পারে। BIOS-এ

Hard Disk Auto Detection করিয়ে দেখা যেতে পারে। Hard Disk Drive বদলিয়ে দেখতে হবে।

"Invalid System Disk and Press to any key Continue"

ফ্লপি ড্রাইভে কোন ফ্লপি ডিস্ক প্রবেশ করানো আছে কি? যদি থাকে তাহলে তা বের করে কম্পিউটার চালু করেন। কম্পিউটার তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই চালু হবার কথা। কিন্তু যদি ফ্লপি ড্রাইভে যদি কোন ফ্লপি ডিস্ক প্রবেশ করানো না থাকে তাহলে হয়তো আপনার উইন্ডোজ করাপ্ট হয়েছে বা গুরুত্ব পূর্ণ সিস্টেম ফাইল মুছে গেছে যে কারণে অপারেটিং  সিস্টেম লোড হচ্ছে না। এছাড়াও Hard Disk এর ডাটা ক্যাবলটি মাদারবোর্ড এর সাথে ভালো ভাবে লাগানো আছে কিনা তা প্রথমেই দেখতে হবে জাম্পার সেটিং সঠিক পর্যায়ে আছে কিনা তাও দেখতে হবে। যদি সব ঠিক থাকে তবে BIOS সেট আপে ঢুকে HDD Auto Detection করিয়ে Save & Exit করে বায়োস থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

"Replace the Disk and then Press any key"

ইহা সাধারণতঃ Hard Disk ডিটেক করতে না পারার সমস্যা। তাই প্রথমে দেখতে হবে বুটিং হওয়ার সময় Hard Disk ডিটেক করচ্ছে কিনা। যদি না করে তবে বায়োস সেটিং এ ঢুকে Hard Disk কে অটো ডিটেক করতে হবে। তার পরও যদি কোন ফল পাওয়া না  যায় তাহলে দেখতে হবে  Hard Disk এর ডাটা ক্যাবল সঠিক ভাবে লাগানো আছে কিনা অথবা ইহাতে কোন System Software লোড করানো হয়েছে কিনা তা লক্ষ্য করতে হবে। Hard Disk খারাপও হতে পারে।

"Windows Protection Error "

You need to restart your Computer"

Ram ঠিক আছে কি না তা দেখতে হবে। যদি ঠিক থাকে C ড্রাইভটি Format করে নতুন করে Windows Install করতে হবে।

"Boot Failure "

কম্পিউটার বুট হওয়ার সময় যদি এই ম্যাসেজটি দেয় তাহলে একটি Bootable CD/DVD

কম্পিউটারে বুট করিয়ে হার্ডডিস্কে System Transfer করে দেখা যেতে পারে।

একটি ফাইলের নাম সহ Message দেয়- "Press any Key to Continue”

যে কোন কারনেই হোক উইন্ডোজের জন্য প্রয়োজনীয় এমন কোন ফাইল মুছে গেছে/ সঠিক জায়গাতে নেই। Windows টি আবার নতুন করে Reinstall করতে হবে।

"Bijoy is not Properly Install"

 

Bijoy Software wU Uninstall করে ভালো সিডি দিয়ে পূনরায় আবার Install করতে হবে।

 

"Bijoy Script Interface Sys"

 

Startup এ বিজয় সংযোজন করে দেওয়া হয়েছে। তাই টাস্কবারে আসছে, Startup থেকে উঠিয়ে দিলেই আর আসবে না।

"Missing Operating System"

 

সম্ভবত Hard Disk এ System Software দেওয়া হয় নাই। তাই Operating

System লোড করতে হবে।

সমস্যাঃ উইন্ডোজের Illegal Operation?

সমাধানঃ  এটি উইন্ডোজের কমন সমস্যা। প্রোগ্রামটি আবার নতুন করে ইন্সটল করেন।

বিকল্পভাবে অন্য কোনো মেশিন থেকে নির্দিষ্ট ডিএলএল ফাইলটি ফ্লপিতে করে আপনার সিস্টেমে কপি করে দেখতে পারেন। যদি মাঝে মাঝেই কোন বাছ বিচার ছাড়াই এটি দেখে থাকেন এবং বেশ কয়েকবার উইন্ডোজ নতুন করে ইন্সটল করেও যদি সমাধান না পেয়ে থাকেন তবে আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস থাকার একটা স্পম্ভাবনা রয়েছে। এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার দিয়ে একবার চেক করে দেখুন। উইন্ডোজের আপগ্রেড ভার্সন ইন্সটল করেও দেখতে পারেন।

সমস্যাঃ  “Invalid page fault in Module MS HTML. DLL”

সমাধানঃ উইন্ডোজ রিস্টার্ট করেন এবং Starting Windows ম্যাসেজ দেখানোর সঙ্গে সঙ্গে F8 কী চাপুন। স্টার্ট মেনু থেকে সেফ মোড সিলেক্ট করুণ। উইন্ডোজ লোড শেষে কন্ট্রোল প্যানেল ওপেন করুণ এবং ইন্টারনেটে ডাবল ক্লিক করুণ, জেনারেল ট্যাব থেকে এক্সেসিবিলিটিতে ক্লিক করুণ। “Format documents using my style sheet” চেকবক্স টি আনচেক করুণ। দু’বার OK চাপুন, সিস্টেম রিস্টার্ট করুণ।

সমস্যাঃ Warning : Windows has detected a Registry/Configuration error.

Chose safe mode to start Windows with a minimal set of drivers.?

সমাধানঃ রেজিস্ট্রি উইন্ডোজের যাবতীয় তথ্য, সফটওয়্যার হার্ডওয়্যার রেকর্ড রাখার ডাটাবেইজ। এতে কোনো এরব  বা করাপশন হলে এই এরব ম্যাসেজটি পেতে পারেন। এজন্য ম্যাসেজের পর হয়তো আপনাকে কম্পিউটার জিজ্ঞেস করতে পারে রেজিস্ট্রি ব্যাকআপ থেকে রিস্টোর করবে কিনা। এখানে হ্যাঁ করলে উইন্ডোজ তার আগের অটোমেটিক রেজিস্ট্রি ব্যাকআপ থেকে ফ্রেস একটি ভার্সন লোড করবে। যদি এটিতেও কাজ না হয় এবং বারবার একই এরব দেখতে থাকেন তবে আপনার হয়তো উইন্ডোজ নতুন করে ইন্সটল করতে হবে।

সমস্যাঃ Cannot deletc Access is denied ……..”

কারনঃ এমন কোন ফাইল মোছার চেষ্টা করছেন যেটার অ্যাপিক্লেশন এখনো চলছে, কিংবা কোন গুরুত্বপূর্ণ ফাইল, ইত্যাদি।

সমাধানঃ এক্ষেত্রে না মুছে আনইন্সটল করে দেখতে পারেন। যদি অ্যাড/রিমুভ প্রোগ্রাম লিস্টে প্রোগ্রামটির নাম না জানা থাকে, তাহলে মোছার আগে প্রোগ্রামটি ক্লোজ করুণ। লক্ষ্য রাখবেন ফাইলটি যেন কোন প্রকারেই উইন্ডোজ ডিরেক্টরের না হয়।

সমস্যাঃ “Windows cannot create a shortcut here. Do you want the

shortcut to be placed on the desktop instead?”

সমাধানঃ উইন্ডোজ কিছু সিস্টেম ফোল্ডারে শর্টকাট তৈরী করতে দেয় না। যেমন – ডায়াল আপ নেটওয়ার্কিং, কন্ট্রোল প্যানেল ইত্যাদি এসব স্থানে আপনি যদি শর্টকাট তৈরী করা চেষ্টা করে থাকেন তবে এ এরব ম্যাসেজটি পেতে পারেন। এটি দেখলে এবং শর্টকাট আইকন ডেস্কটপের তৈরি হবে।

সমস্যাঃ “Please wait … Shutting down”

কারনঃ আপনার উইন্ডোজ খুব সম্ভবত কম্প্যাটিবল না।

সমাধানঃ রিসেন্টলি ইন্সটল কৃত সফটওয়্যার আনইন্সটল করে চেক করে দেখুন সমস্যা সমাধান হয় কিনা। উইন্ডোজ লোড হওয়ার সময় “Starting Windows ….” ম্যাসেজ লোড হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে F8 চাপুন। স্টার্ট মোডে শার্টডাউন না হয়ে থাকে তবে আপনার উইন্ডোজ এবং মাদার বোর্ড কম্প্যাটিবল না।

ফাস্ট শার্টডাউন ডিসঅ্যাবল করুণ।

Start→Program→Accessories→System→Tools→System

Information এ ক্লিক করুণ। টুলস মেনু থেকে সিস্টেম কনফিগারেশন উইটিলিটিতে ক্লিক করুণ। জেনারেল ট্যাব থেকে অ্যাডভান্সে ক্লিক করুণ। সেখান থেকে ডিসঅ্যাবল ফাস্ট শার্টডাউন চেকবক্সটি সিলেক্ট করুণ। OK দু’বার চাপুন। রিস্টার্ট করুণ। এছাড়া শার্টডাউন ওয়েব ফাইল করাপ্ট হলেও একই ঘটনা ঘটতে পারে।

Start→Setting→Control Panel থেকে Sound এ ডাবল ক্লিক করুণ। ইভেন্ট বক্স থেকে এক্রিট উইন্ডোজে ক্লিক করুণ। তারপর নেম বক্সে ক্লিক করে সিস্টেম রিস্টার্ট করুণ।

সমস্যাঃ  “Control find a device file that may be needed”

কারনঃ নির্দিষ্ট অ্যাপিক্লেশনের জন্য প্রয়োজনীয় ফাইল কিংবা ড্রাইভার খুঁজে পাওয়া না গেলে এই সমস্যা হবে।

সমাধানঃ প্রোগ্রামটি আবার ইন্সটল করে আনইন্সটল করুণ। হারানো ফাইলটি যদি চিফ এক্সটেনশন যুক্ত হয়ে থাকে তবে একটি ড্রাইভার, নির্দিষ্ট কম্পোনেন্টের অসম্পূর্ণ ইনস্টলেশনের কারণে এমন টি ঘটে থাকে। কম্পোনেন্টটি মুছে ফেলে আবার ইন্সটল করুণ।

স্টার্ট মেনু থেকে Program→Accessories→System টুলস থেকে সিস্টেম ইনফরমেশনে ক্লিক করুণ। টুলস ট্যাব থেকে সিস্টেম ফাইল চেকারে ক্লিক করুণ।

Extract one file from installation Disk এ ক্লিক করে হারানো ফাইলটির নাম টাইপ করুণ।  উইন্ডোজের সিডি ইনসার্ট করে OK দিন। কাজ শেষে সিস্টেম রিস্টার্ট করুণ।

সমস্যাঃ কম্পিউটার ওপেন হবার পর উইন্ডোস ডিসপ্লে একটা ম্যাসেজ দিচ্ছে

Data error reading drive C Abort, lgnore, Retry. Fail?

সমাধানঃ হার্ডডিস্কে সম্ভবত ব্যাড সেক্টর পড়েছে। হার্ডডিস্কের ওয়্যারেন্টি থাকলে আর দেরি না করে ভেন্ডরের কাছে ছুটুন নতুন হার্ডডিস্কের জন্য । আর যদি ওয়্যারেন্টি পিরিয়ড শেষ হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে আর কি করা, স্টার্টআপ ডিস্ক ব্যবহার করে Dos মোডে ঢুকে SCAN DISK চালিয়ে দেখুন ব্যাড সেক্টর দূর করে ফেলা যায় কিনা। এরপর নতুন করে উইন্ডোজ সেটআপ করে নিন। হার্ডডিস্ক ফরম্যাট করেও দেখতে পারেন। 

সমস্যাঃ এরর ম্যাসেজ “Out of Disk space ……..”

সমাধানঃ উইন্ডোজের জন্য প্রয়োজনীয় ফ্রি জায়গা নেই।

সমাধানঃ ইন্টারনেট এক্সপ্লোয়ার ওপেন করুণ। টুলস মেনু থেকে ইন্টারনেট অপশন সিলেক্ট করুণ। ডিলিট ফাইলস এবং ক্লীয়ার হিস্টোরিতে ক্লিক করে পৃথক পৃথক ভাবে সকল প্রকার টেম্পোরারি ইন্টারনেট ফাইল মুছে ফেলুন। কন্ট্রোল প্যানেল থেকে  অ্যাড/রিমুভ প্রোগ্রামের মাধ্যমে অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রাম মুছে ফেলুন। স্টার্ট মেনু থেকে

Find Files/Folder ক্লিক করে নেম বক্সে *.tmp লিখে সার্চ বাটনে ক্লিক করে সার্চ করুণ। যতগুলো ফাইল পাওয়া যায় সিলেক্ট করে চিরতরে মুছে ফেলুন। কিছু ফাইল এরর ম্যাসেজ দেখাতে পারে, সেক্ষেত্রে চলমান সব প্রোগ্রাম ক্লোজ করে আবার চেষ্টা করুণ। রিসাইকেল বিন খালি করুণ।

Syed Rubelপিসি সমস্যা ও সমাধানসমস্যাঃ মনিটর এ display আসেনা, কিন্তু বারবার BeepSound দিচ্ছে? সমাধানঃ Graphises Card অথবা Ram টি খুলে পরিস্কার করে নির্দিষ্ট স্থানে সঠিক ভাবে লাগতে হবে। এতে যদি কোন কাজ না হয়, তবে একটি ভালো Graphises Card লাগিয়ে দেখা যেতে পারে। ফলে Graphises Card টি নষ্ট হয়েছে কিনা তা বুঝা যাবে। সমস্যাঃ মনিটর...Amar Bangla Post