Home / নারী / নারীর স্বাস্থ্য সমস্যা / ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাব| মাসিকের সময় তলপেটে ব্যাথা

ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাব| মাসিকের সময় তলপেটে ব্যাথা

তল পেটে ব্যথানারীদের বিভিন্ন শারীরিক  অসুস্থতার মধ্যে ঋতুকালীন সমস্যা একটি যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা। উক্ত রোগকে “মাসিক কালীন তলপেটে ব্যথা” নামে আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে। মেয়েদের মাসিক ঋতুস্রাব আরম্ভ হওয়ার আগে বা ঋতুচলাকালীন ব্যথা অথবা এ ধরণের উপসর্গের কথা অনেক মহিলারাই বলে থাকেন। এধরণের ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাবকে কেউ কেউ “বাধক বেদনা” বলে থাকেন। চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় এটাকে বলা হয় “ডিসমেনোরিয়া”। ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাব সাধারণতঃ অল্পবয়সী, অবিবাহিতা নারীদের বেশী হয়। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে রোগের ব্যথার তীব্রতা ও উপসর্গ কমে যায়।

ব্যথা যুক্ত ঋতুস্রাবের কারণ:

১. হরমোনের কারনে (প্রজেসটেরোন এ মাত্রা বেশী হলে)।

২. জরায়ুর সংকোচন প্রসুত জরায়ুর রক্তাল্পতা।

৩. জরায়ুগ্রীবা বেশী সরু হলে।

৪. জরায়ুর কোন রোগ হলে- এন্ডোমেট্রিয়াসিস, জরায়ু প্রদাহ।

৫. জরায়ুর রক্তবাহী ধমনীর ত্রুটির জন্য। ৬. তলপেটে প্রদাহ (পি.আই.ডি)।

৭. মানসিক কারণ- যে মেয়েরা অতিমাত্রায় মনের দিক থেকে দুর্বল, স্পর্শকাতর, অসুখী, ভাবপ্রবণ, সবকিছুতেই বিরক্তি, দুশ্চিন্তা, ভয়,মানসিক অবসাদ এ যারা ভোগেন।

৮. বংশগত কারণ।

ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাবের লক্ষণ:

১. মাসিক স্রাবের প্রথম দিনে তীব্র ব্যথা হয়। এটি খিঁচুনী ব্যথার মতো থেমে থেমে আসে অথবা অবিরাম থাকে। ব্যথা ২/৩ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

২. ব্যাথার তীব্রতা খুবই বেশী। তলপেটে ও দুই উরুর সামনের দিকে ও ভেতরের দিকে প্রচন্ড ব্যথা হয়ে থাকে। কখনও কোমরেও ব্যথ অনুভুত হয়।

৩. ব্যথার সাথে বমি ভাব বা বমি হতে পারে মাথা ব্যথা হবে এবং শারীেিক অস্বস্থি বোধ হবে।

৪. কখনও কখনও পাতলা পায়খানা, পায়খানার রাস্তায় চাপানুভুতি হবে। টেনশনে প্রস্রাবের বেগ বেড়ে যেতে পারে। ৫. কখনও স্তনেও ব্যথা হতে পারে।

৬. রোগী বেশী দূর্বল হয়ে গেলে অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে।

৭. ঋতুস্রাবে রক্তের পরিমাণ খুবই অল্প হয়।

পরামর্শ:

১. শারীরিক ও মানসিক সুস্থতার দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

২. কোষ্ঠকাঠিন্য, অপুষ্টি দূর করতে প্রচুর শাকসবজি, মাছ, মাংস, দুধ, ডিম ও পানি খেতে হবে।

৩. পরিষ্কার পরিচন্নতা এবং জীবাণূমুক্ত কাপড় বা প্যাড ব্যবহারের অভ্যাস করতে হবে।

৪. নিয়মিত ব্যায়াম বা হাটাহাটির অভ্যাস রাখতে হবে।

৫. সর্বদা হাসিখুশী ও উৎফুল্ল ভাবে জীবন যাপন করতে হবে।

৬. প্রজনন স্বাস্থ্য শিক্ষার ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।

লিখেছেনঃ ডা. মনিরুজ্জামান এম. ডি  ( কলকাতার স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত ন্যাচারাল মেডিসিন ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ও একজন খ্যাতিমান চিকিৎসক, গবেষক, লেখক ও আয়ুর্বেদিক কেমিস্ট।) প্রয়োজনে 01707-330660

About ডাক্তার মনিরুজ্জামান

কলকাতার স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত ন্যাচারাল মেডিসিন ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মনিরুজ্জামান এম. ডি একজন খ্যাতিমান চিকিৎসক, গবেষক, লেখক ও আয়ুর্বেদিক কেমিস্ট। ন্যাচারাল মেডিসিনে ভারত থেকে অর্জন করেন এম.ডি ও সেক্সোলজিতে পি.জি.ডি ডিগ্রি। এছাড়াও ভারতের কলকাতা, উরিষ্যা, বিহার, গৌহাটি, মুম্বাই, রাজস্থান, চেন্নাই ও কেরেলাসহ বিভিন্ন স্থানে প্রশিক্ষণ ও সেমিনারে অংশ গ্রহণ করেন। বাংলাদেশ বোর্ড অব ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদিক সিস্টেম অব মেডিসিন এর অধীনে তিব্বিয়া হাবিবিয়া ইউনানী মেডিকেল কলেজের স্বনামধন্য অধ্যক্ষ মরহুম হাফিজ হাকিম আজিজুল ইসলাম-এর কাছ থেকে ডা. মনিরুজ্জামান ইউনানী শাস্ত্রে ডি.উই.এম.এস ও নূর মজিদ আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রব খানের অধীনে আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে ডি.এ.এম.এস ডিগ্রি অর্জন করেন। ডা. মনিরুজ্জামান একাধিক ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক ফার্মাসিউটিক্যাল্স এর উৎপাদণ ও গবেষণা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। অতপর সিলেট আয়ুর্বেদিক কলেজে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন। বর্তমানে ঢাকাস্থ মডার্ন ইউনানী আয়ুর্বেদিক কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্বরত আছেন। রুরাল এনভাইরনমেন্ট কমিনিউটি হেল্থ সোসাইটির প্রধান সমন্বয়কারী হিসেবে হারবাল মেডিসিন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করছেন। খন্ডকালীন প্রশিক্ষক হিসেবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রাণালয়ের অধিনস্থ বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল এর হারবাল মেডিসিন প্লান্ট এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ও ইসলামী ফাউন্ডেশনের ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমী সিলেট-এ হারবাল মেডিসিন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করছেন। এছাড়াও এস.এস ফার্মাসিউটিক্যাল্স ও অনির্বান মেডিসিনাল ইন্ডাস্ট্রিজ-এর প্রডাক্টস বিষয়ক প্রধান প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন। বাংলাদেশ সেন্টার ফর রিসার্চ ইন ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদিক মেডিসিন এর মুখ্য গবেষক হিসেবে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার উৎপাদিত ভেষজ তথা মেডিসিনাল প্লান্টের বৈজ্ঞানিক চাষাবাদ এবং প্রাকৃতিক উপায়ে সংগ্রহ ও সংরক্ষণ বিষয়ক গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। ডা. মনিরুজ্জামানের লিখিত স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন নিবন্ধ নিয়মিত স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয় এবং আয়ুর্বেদিক, আকুপ্রেসার, প্রাকৃতিক চিকিৎসা, ইয়োগা ও যৌন রোগ বিষয়ক বই প্রকাশ করেন। ডা. মনির’স ন্যাচার কিউর প্রতিষ্ঠা করেন এবং সি.ই.ও এর দায়িত্ব পালন করছেন। দেশ-বিদেশে অবস্থানরত বাংলা ভাষাভাষী রোগীদের অনলাইন ও টেলিমেডিসিন স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করছেন। আপনার চিকিৎসা নিতে কথা বলুন 01707330660

Check Also

যমজ গর্ধারণ

যমজ সন্তান গর্ভধারণ। যমজ সন্তান কেন হয় ও মায়ের পরিচর্যা

ধৃতরাষ্ট্র-জায়া গান্ধারী শতপুত্রের জননী। কিন্তু সেই শতপুত্র একই সঙ্গে তাঁর জরায়ুতে বিকশিত হয়নি। গর্ভশয্যায় সাধারণত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *