Home / নারী / নারীর স্বাস্থ্য সমস্যা / নকল গর্ভ ধারণ সমস্যা ও সমাধান
নকল গর্ভ ধারণ

নকল গর্ভ ধারণ সমস্যা ও সমাধান

নারী জীবনের পরিপূর্ণতা মাতৃত্বে। সন্তান পিপাসু মায়ের গর্ভশয্যায় বিকশিত শিশু তাঁর কল্পনা, কামনা-বাসনা ও মাতৃ—হৃদয়ের সমস্ত মাধুর্যের বাস্তব প্রতীক হয়ে জন্ম নেয়। গর্ভাবস্থায় মাঝামাঝি থেকে শুরু করে প্রসবকাল পর্যন্ত অনেক নারী গর্ভাবস্থায় বিকশিত শরীরকে লোকচক্ষুর অন্তরালে রেখে-ঢেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার চেষ্টা করে। আবার বহু আকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণ করে বহু রমণী কোনোরকম লজ্জা-শরমের পরোয়া না করে গর্ভধারণকে গর্বের ব্যাপার মনে করে যেন বলতে চায় যে, দেখো, আমিও রমণীর সর্বশ্রেষ্ঠ পাওয়া—তা একান্ত আপন মহিমায় ঐশ্বর্যবতী হওয়ার রূপ—মাতৃরূপে প্রতিষ্ঠিত হতে চলেছি।
প্রেক্ষাপট ঃ বেশিদিন ধরে অনুর্বরতা রোগে ভোগার কারণে কোনো কোনো বেশি অনুভুতিপূর্ণ নারীর নকল গর্ভরোগ সৃষ্টি হয়। এটি একটি মজার ব্যাপার। এক্ষেত্রে নারীর মানসিক কারণে এমন কল্পনার গর্ভ রোগের উৎপত্তি হয়। নারীর অন্তরের গভীরের কলনার ফল্পুধারা যখন তাঁর অনুর্বর জীবনের মরুভূমিতে দিশেহারা, নবমুকুলিত স্বপ্নরঙিন জীবনের উষ্ণতা যখন মরুবালুতে ধাক্কা খেতে খেতে বিবর্ণ, ক্যারিশমাহীন, আশাতরু যখন বিষাদ সিন্ধুতে নিমজ্জিত অথবা সন্তানহীনতাকে কেন্দ্রে করে আশাতরু অশান্তির দাবানলে ঝলসে যায়, মানসিক দুঃখ-যন্ত্রনার পাঁচালী সঙ্গী করে জীবনের সরগম যখন বেসুরো বৈচিত্র্যহীন করুণ রাগিনীর মতো বাজে, প্রকৃতির রূপ-রস-বর্ণ-গন্ধ সবই যখন ফ্যাকাশে বিবর্ণ লাগে, বিশেষ করে সেই সমস্ত ক্ষেত্রে এই রোগ সৃষ্টি হয়, যে রোগে গর্ভ না ধরেই নারী গর্ভযন্ত্রণা ভোগ করে। জীবনযন্ত্রণা এক্ষেত্রে এই রোগ সৃষ্টি হয়, যে রোগে গর্ভ না ধরেই নারী গর্ভযন্ত্রণা ভোগ করে। জীবন যন্ত্রণা এক্ষেত্রে জীবনহীন অথচ যন্ত্রণা।
উপশম ঃ ঠিক গর্ভ হওয়ার মতো উপসর্গসমূহ দেখা যায়। যেমন মাসিক বন্ধ হওয়া, সকালবেলা বমি-বমি ভাব বা বমি করা, স্তন্যদ্বয় বেশি বিকশিত হওয়া, পেট ক্রমে ক্রমে ফুলে ওঠা, ওজন বৃদ্ধি হওয়া, পেটের ভেতরের বাচ্চা নড়াচড়া অনুভূত হওয়া, এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে নকল প্রসব-যন্ত্রণাও শুরু হয়।
কিন্তু রোগীকে পরীক্ষা করে যদিও দেখা যায় যে, জরায়ুর আকার বৃদ্ধি হয়নি বা রোগী গর্ভধারণ করেনি, তবু রোগীকে সেটা কিছুতেই বোঝানো যায় না অথবা রোগী কিছুতেই সেটা মেনে নিতে চান না। অনুর্বরতা রোগের জন্য হতাশায় ভোগা রোগী বহু আকাঙ্ক্ষিত গর্ভের জন্য মানসিক কারণে, যেমন—উক্ত উপসর্গসমূহ সৃষতি করে, রজঃনিবৃত্তির সময় বিশেষ অকালে রজঃনিবৃত্তির কারণে গর্ভ হওয়ার অত্যধিক ভয়ের জন্যও স্ত্রী নকল গর্ভের সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকের দরবারে হাজির হয়। এক্ষেত্রে আকাঙ্ক্ষিত সন্তানে পরিতৃপ্তি নারী রজঃনিবৃত্তির দোরগোড়ায় ঋতুবন্ধের কারণে আতঙ্কিত ও মানসিক বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। বেশি বয়সে গর্ভের ভয়, উৎকণ্ঠা, আবেগ, বড় হওয়া সন্তান-সন্ততিদের কাছে লজ্জায় হেঁট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কার গহ্বরে নিমজ্জিত থাকে।
কারণ সমূহ
• কোনো কোনো ক্ষেত্রে যদিও মাসিক খুব কম পরিমাণে হয়, তবুও রোগী তাঁকে ঋতুবন্ধ বলে ধরে নেয়।
• স্তনের ও পেটের আকার বৃদ্ধি মূলত উক্ত অঙ্গে চর্বি জমার জন্য হয়।
• বহু ক্ষেত্রে রোগী পেটের মাংসপেশি শক্ত করে ফুলিয়ে গর্ভাবস্থায় ফোলা পেটের মতো করে তাঁর বহু আকাঙ্ক্ষিত গর্ভের লক্ষণ বলে ঘরে ও বাইরে প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে।
• অনেক ক্ষেত্রে কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটে গ্যাস ও বদহজমে রোগ পেট ফুলে থাকার কারণ।
• পেটে গ্যাস বা হাওয়া ঘোরাফেরাকে রোগী বাচ্চার নড়াচড়া হিসাবে ধরে নেয়।
রজঃবন্ধ বা অকালে রজঃনিবৃত্তির কারণে স্তন ও পেটে চর্বি জমার জন্য উক্ত অঙ্গদ্বয়ের আকার বৃদ্ধি হয়। সেই সঙ্গে কোষ্ঠকাঠিন্য ও পেটে গ্যাস বা হাওয়া ঘোরাফেরার জন্য নারী মনে করেন যে, পেটের ভেতরে বুঝি বাচ্ছা নড়াচড়া করছে।
পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসা
এই সমস্ত ক্ষেত্রে মনোরোগ-বিশেষজ্ঞ থেকে স্ত্রীরোগ-বিশেষজ্ঞ রোগীর সমস্যার দূর করতে বেশি পারেন। হাত দিয়ে পেট বা জরায়ু পরীক্ষা করে বোঝা যায় যে, রোগীর গর্ভধারণ আসল, না নকল। তবু তাঁকে আশ্বস্ত করার জন্য তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা ও বারে বারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে হয়। মূলত যে পরীক্ষা করে নিশ্চিন্তভাবে বোঝা যায় যে, মহিলা গর্ভবতী নন, তা হল—
* প্রস্রাব পরীক্ষা করাঃ রিপোর্ট দেখে বোখা যায় যে, মহিলা গর্ভবতী কি না।
* আল্ট্রাসাউন্ড করাঃ এতে সঠিকভাবে বোঝা যায় যে, গর্ভধারণ হয়েছে কি না।
রোগীকে অজ্ঞান করে পরীক্ষা করাঃ রোগী পেটের মাংসপেশি ফুলিয়ে নকল গর্ভের যে লক্ষণগুলো প্রকাশ করে, অজ্ঞান হলে সেই মাংশপেশির সঙ্কোচন আর থাকে না, ফলে পেট ভোলা ভাবও নিমেষে উধাও হয়ে যায়। ওই সমস্ত পরীক্ষার ফল রোগীকে বোঝালে তিনি নিশ্চিন্ত হতে পারেন যে, রোগটা আসলে নকল গর্ভ।
লেখকঃ ডাঃ অবিনাশ চন্দ্র রায়। (স্ত্রীরোগ-বিশেষজ্ঞ)
লেখকের গর্ভবতী মা ও সন্তান বই থেকে নেওয়া।

এই আর্টিকেলটিকে রেটিং দিন

0%

এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কাছে কেমন লেগেছে তা আমাদেরকে জানাতে আপনি একটি রেটিং দিন।

নারীদের বিভাগ থেকে আরো দেখুন
User Rating: Be the first one !

About Syed Rubel

Creative Writer/Editor And CEO At Amar Bangla Post. most populer bloger of bangladesh. Amar Bangla Post bangla blog site was created in 2014 and Start social blogging.

Check Also

মনোপজ

মনোপজে এইচ আর টি

মেয়েদের রজঃস্রাব শুরু হয় সাধারণত ১৩ বৎসর বয়সে। এটি খুবই স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক শরীরবৃত্তিয় ঘটনা। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: