Home / ইসলাম / ফতোয়া

ফতোয়া

ফতোয়া মুসলিম সম্প্রদায়ের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। মানব সমাজের বিভিন্ন সমস্যাকে ইসলামের দৃষ্টিতে যে সমাধান দেওয়া হয় তাকে ফতোয়া বলা হয়। ফতোয়া সে ব্যক্তিই দিতে পারবেন যে ইসলামের বিধানের পূর্ণাঙ্গ জ্ঞান রাখেন। এখানে বিজ্ঞ আলেমদের নিকট বিভিন্ন সময়ে করা প্রশ্নের উত্তরের ফতোয়া গুলো প্রকাশ করা হয়েছে। যা পড়ে মুসলিম সম্প্রদায়ের ভাই-বোনেরা উপকৃত হবে আমরা আশা করি। 

আর কাউকে বিয়ে করা যাবে না, কোনো নারীর এ জাতীয় শর্ত পূরণ করা কি জরুরি?

বিয়ে করা

আর  কাউকে বিয়ে  করা যাবে না, কোনো  নারীর এ জাতীয় শর্ত পূরণ করা কি জরুরি? প্রশ্ন : আমার প্রশ্নগুলো হচ্ছে : ১– রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগে বিয়ের সময় নারীরা কি স্বামীদের শর্ত দিত যে, অন্য  কাউকে বিয়ে করা যাবে না? এটা কি  হালাল বস্তুকে হারাম সাব্যস্ত করার মধ্যে শামিল …

Read More »

হজে সম্পর্কে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ৫৭ ফাতাওয়া

হজের প্রশ্ন উত্তর

বর্ণনাঃ নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা আমার থেকে হজের কর্মকাণ্ড শিখে নাও, কারণ হতে পারে আমি এ বছরের পর তোমাদের সাথে সাক্ষাত করতে পারবো না, সে কারণে সাহাবায়ে কিরাম রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞেস করে যাবতীয় বিষয় জেনে নিতে সচেষ্ট ছিলেন। এ প্রবন্ধে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক প্রদত্ত ফতোয়াসমূহ …

Read More »

প্রশ্নঃ জুমার দিনে ৮০ বার দরূদ পড়লে ৮০ বছরের গুনাহ মাফ হয় তা কি সত্য?

দোয়ায়ে কুনুত

প্রশ্ন: একটি হাদীস সম্পর্কে আমার জিজ্ঞাসা, তা হল আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, জুমু‘আর দিন আসরের সালাতের পর জায়গা থেকে উঠার পূর্বে যে ব্যক্তি ৮০বার নিম্ন বর্ণিত দুরূদটি পড়বে, আল্লাহ তা‘আলা তার ৮০ বছরের গুনাহ মাপ করে দেবেন এবং তার জন্য ৮০ বছর ইবাদত করার সাওয়াব লিপিবদ্ধ …

Read More »

পৃথিবী বসবাসের অনুপযোগী হওয়ার সত্ত্বেও ইসলাম কিভাবে বলে অধিক সন্তান নিতে

আমাদের এক ভাই প্রশ্ন করেছেন যে, “রাসূলুল্লাহ স. বলেছেন, “তোমরা অধিক সন্তান প্রসবকারিনী মহিলাদের বিয়ে করো।” অথচ বর্তমান সময়ের ডাক্তারগণ বলছেন ১/২ সন্তান নিতে কারণ পৃথিবীতে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে আর এতে করে পৃথিবী বসবাস অনুপযোগী হয়ে যাচ্ছে। তাহলে কিভাবে ইসলাম পৃথিবী বসবাস অনুপযোগী হওয়ার মতো একটি কথা বলতে পারে? উত্তরঃ আলহামদু …

Read More »

রোজা বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ও উত্তর

বর্ণনা: দীন ইসলামের ভিত্তি হচ্ছে পাঁচটি বিষয়ের ওপর। এ পাঁচটি ভিত্তি সম্পর্কে মানুষের প্রশ্নের অন্ত নেই, জিজ্ঞাসার শেষ নেই। তাই নির্ভরযোগ্য প্রখ্যাত আলিমে দীন, যুগের অন্যতম সেরা গবেষক আল্লামা শাইখ মুহাম্মাদ ইবন সালেহ আল-উসাইমীন রহ. ঐ সকল জিজ্ঞাসার দলীল ভিত্তিক নির্ভরযোগ্য জবাব প্রদান করেছেন উক্ত বইটিতে। প্রতিটি জবাব পবিত্র কুরআন-সুন্নাহ ও …

Read More »

প্রশ্ন: সাওম আদায়কারীর কফ অথবা থুথু গিলে ফেলার বিধান কী?

প্রশ্ন: (৪৩১) রোযা আদায়কারীর কফ অথবা থুথু গিলে ফেলার বিধান কী? উত্তর: কফ বা শ্লেষা যদি মুখে এসে একত্রিত না হয় গলা থেকেই ভিতরে চলে যায় তবে তার সাওম নষ্ট হবে না। কিন্তু যদি গিলে ফেলে তবে সে ক্ষেত্রে বিদ্বানদের দু’টি মত রয়েছে: ১ম মত: তার সাওম নষ্ট হয়ে যাবে। কেননা …

Read More »

এয়ারপোর্টে থাকাবস্থায় সূর্য অস্ত গেছে ….

প্রশ্ন: (৪৩০) এয়ারপোর্টে থাকাবস্থায় সূর্য অস্ত গেছে মুআয্যিন আযান দিয়েছে, ইফতারও করে নিয়েছে। কিন্তু বিমানে চড়ে উপরে গিয়ে সূর্য দেখতে পেল। এখন কি পানাহার বন্ধ করতে হবে? উত্তর: খানা-পিনা বন্ধ করা অবশ্যক নয়। কেননা যমীনে থাকাবস্থায় ইফতারের সময় হয়ে গেছে সূর্যও ডুবে গেছে। সুতরাং ইফতার করতে বাধা কোথায়? রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু …

Read More »

সতর্কতা বশতঃ ফজরের দশ/পনর মিনিট পূর্বে পানাহার বন্ধ করা।

প্রশ্ন: (৪২৯) রামাযানের কোনো কোনো ক্যালেন্ডারে দেখা যায় সাহুরের জন্য শেষ টাইম নির্ধারণ করা হয়েছে এবং তার প্রায় দশ/পনর মিনিট পর ফজরের টাইম নির্ধারণ করা হয়েছে। সুন্নাতে কি এর পক্ষে কোনো দলীল আছে নাকি এটা বিদ‘আত? উত্তর: নিঃসন্দেহে এটি বিদ‘আত। সুন্নাতে নববীতে এর কোনো প্রমাণ নেই। কেননা আল্লাহ তা‘আলা সম্মানিত …

Read More »

প্রশ্ন: নাক থেকে রক্ত বের হলে কি সাওম নষ্ট হবে?

প্রশ্ন: (৪২৮) নাক থেকে রক্ত বের হলে কি সাওম নষ্ট হবে? উত্তর: নাক থেকে রক্ত বের হলে সাওম নষ্ট হবে না- যদিও বেশি পরিমাণে বের হয়। কেননা এখানে ব্যক্তির কোনো ইচ্ছা থাকেনা। বিষয়ঃ সাওম।

Read More »

প্রশ্ন: সাওম আদায়কারীর ঠাণ্ডা ব্যবহার করার বিধান কী?

প্রশ্ন: (৪২৫) সাওম আদায়কারীর ঠাণ্ডা ব্যবহার করার বিধান কী? উত্তর: ঠাণ্ডা-শীতল বস্তু অনুসন্ধান করা সাওম আদায়কারী ব্যক্তির জন্য জায়েয, কোনো অসুবিধা নেই। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাওম রেখে গরমের কারণে বা তৃষ্ণার কারণে মাথায় পানি ঢালতেন।[1] ইবন ওমর রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু সাওম রেখে গরমের প্রচণ্ডতা অথবা পিপাসা হ্রাস করার জন্য শরীরে …

Read More »