Home / নারী / রূপচর্চা / স্তনের রঙ গোলাপী করার ঘরোয়া পদ্ধতি
গোলাপী স্তন

স্তনের রঙ গোলাপী করার ঘরোয়া পদ্ধতি

গোলাপী স্তন

এটি যদিও মুখের অথবা চুলের যত্নের মতো নারীদের কাছে অগ্রাধিকার পায় না, তবে স্বাস্থ্যসম্মত চিন্তা-ভাবনা আপনার স্তনকে সতেজ রাখে এবং আপনার সুন্দর যৌন জীবন দিতে সাহায্য করার জন্য ভূমিকা রাখতে পারে!

আমাদের শরীরের প্রতিটি অংশের যত্ন নেওয়া দরকার। তাই আপনার স্তন সম্পর্কে হালকা ধারণা থাকা সময়ের জন্য খুব ভাল।

স্তনের বোঁটার রং পরিবর্তন চাওয়ার আগে আপনার স্তনের উপর কিছু সাধারণ তথ্য জেনে নিন।

০১. স্তনের বোঁটার রং বিভিন্ন রঙের হতে পারে। যেমনঃ গোলাপী, লাল, বাদামী ও কালো ইত্যাদি।

০২. নারীর স্তন জন্ম থেকে বার্ধক্য, গর্ভাবস্থায় থেকে বয়ঃসন্ধি পর্যন্ত বিকাশ ঘটে।

০৩. প্রাথমিকভাবে নারীদের স্তনের বোঁটার রং গোলাপী হয়। স্তনের আকার এবং বোঁটার রং শারীরিক পরিবর্তনের সঙ্গে বিভিন্নমুখী হতে শুরু করে দেয়।

০৪. অনেক কারনে নারীদের স্তনের রঙের পরিবর্তন ঘটে। এর মধ্যে কিছু সাধারণ কারণ হতে পারে। যেমনঃ মাসিক, গর্ভাবস্থা, বয়ঃসন্ধি, বুকের দুধ খাওয়ানো, ওষুধ, চামড়া মর্দন ইত্যাদি অন্তর্ভূক্ত করা যায়।

০৫. স্তনের ত্বকের পার্শ্ববর্তী অংশের এউমেলানিন (Eumelanin) বা বাদামী রঙ্গক (brown pigment ) এবং ফেওমেলানিন (Pheomelanin) লাল রঙ্গক (red pigment) এই দুই কারণে নিয়ন্ত্রিত হয়। এই রঙ্গকের বিস্তার আমাদের ব্রণ বা ফোড়ার চারপাশের গোলাকার অংশকে লালচে করে দেয়।

০৬. স্তনের রং চামড়ার প্রকৃতির উপর নির্ভর করে, যা আবার বংশগত ভাবে পরিবর্তিত হতে পারে। ককেশীয় (Caucasians) অঞ্চলে নারীদের স্তনের বোঁটার রং গোলাপী, দক্ষিণ এশিয়ার নারীদের বাদামী এবং আফ্রিকার নারীদের স্তনের বোঁটার রং কালো হতে দেখা যায়।

০৭. পুরুষেরা সাধারণত গাঢ় রঙের স্তন যুক্ত নারীকে বেশি পছন্দ করে। তাই আপনি এই সমধান গুলি ব্যবহার করার পূর্বে জেনে নিন আপনার সঙ্গিনী এব্যাপারে সমর্থন আছে কি না!

০৮. ইউএস-এর সাদা চর্ম যুক্ত ১২% সুন্দুরীরা বিশ্বাস করে তাঁদের স্তনের জন্য গাঢ় রং প্রয়োজন। কারণ তাঁরা বিশ্বাস করে গাঢ় রং অধিক যৌন আবেদনময় হয়।

গোলাপী রঙের স্তনের জন্য ঘরোয়া পদ্ধতি

আপনি উপরের সব তথ্য পড়েও যদি এখনো সিদ্ধান্তে অটল থাকেন, তাহলে আপনার স্তনের ত্বক উজ্জ্বল ও গোলাপী রং করার জন্য আমরা কিছু উপায় জানাতে পারি।

০১. লেবুর নির্যাসঃ লেবুর রস বিভিন্ন কাজের জন্য বহুল পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। প্রথমে লেবুর রস পিষে নিন এবং এর সাথে মধু ও দই যোগ করুণ। অতঃপর তা আপুনার স্তনের উপরে প্রয়োগ করুণ এবং শুকিয়ে যাওয়ার জন্য ৩০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করুণ। তারপর এটাকে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহ একবার করে এই পদ্ধতিটি আপনার স্তনে প্রয়োগ করুণ।

০২. বাতাবি লেবু (Lime) : লেবুর রস বের করে তাতে মধু যুক্ত করুণ। এই মিশ্রণ আপনার স্তনের বোঁটায় প্রয়োগ করুণ এবং তা শুকিয়ে যেতে ৩০ মিনিট পর্যন্ত সময় দিন। তারপর এটাকে মুছে ফেলুন এবং প্রতি সপ্তাহে একবার করে এই পদ্ধতিটি প্রয়োগ করুণ। লেবু আম্লিক হওয়ায় আপনার ত্বক থেকে মৃত কোষ তুলতে সাহায্য করবে এবং আপনার স্তনের নবীন চেহারা দেবে।

০৩. ময়েসটনার (Moisterner) :  লেবুর সাথে আপনি লাইটনিং ক্রিমও ব্যবহার করতে পারেন।  আপনার স্তনের উপর এরকম মলম যেমন ভেসলিন (Vaseline), লিপ বাম (lip balm ) বা শিয়া মাখন (shea butter )প্রতি রাতে লাগান। এটা আপনার স্তনকে সতেজ রাখবে। পরের দিন সকালে গোসল করার সময়, এই অংশটি ভাল করে পরিষ্কার করে নিতে ভুলবেন না। এটি বিশেষত ব্রণ প্রতিরোধে কাজ করে।

০৪. বাদাম (Almonds) : আপনার স্তনের রং বদলিয়ে দিতে বাদাম খুব সাহায্য করবে। আপনি ব্লেন্ডারের দুধ ও বাদাম ভাল করে পিষে নিন এবং আপনার স্তনে প্রয়োগ করুণ। তাছাড়াও আপনি শপ থেকে বাদামের তেল কিনতে পারেন এবং নির্দ্বিধায় আপনার স্তনে ব্যবহার করতে পারেন। আপনি এটিকে এক ঘন্টা রেখে দিন এবং তারপর আপনি এটি মুছে ফেলুন এবং পরিষ্কার করে ফেলুন। কাঙ্ক্ষিত ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত পুনরাবৃত্তি করতে থাকুন।

স্তনের রং সুন্দর পাওয়ার পাশাপাশি আপনাকে মনে রাখতে হবে স্তনের স্বাস্থ্য ভালো রাখার প্রতি। আপনার খাদ্য তালিকা, শরীর চর্চা এবং শরীরকে ব্যবহার করা ইত্যাদির প্রভাব আপনার স্তন এবং বোঁটায় পড়ে। আপনার স্তনের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে কিছু টিপস জেনে নিনঃ

০১. সঠিক  খাদ্য ব্যবহারঃ অনেক অধ্যয়ন ও গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, কিছু খাদ্য স্তনের ক্যান্সার (baeast cancer) প্রতিরোধ করতে পারে। এই ধরণের ফল এবং শাকসবজি যাতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট (antioxidants) বিদ্যমান থাকে এবং এগুলি গ্রহণ করলে আপনার স্তনেরও যত্ন নেয়।

আপনার স্তনের যত্নের জন্যে তিসি দানা (flaxseeds), আখরোট (walnuts), মাছের তেলের ওমেগা -3 ফ্যাটি (omega-3 fatty acids in fish oil), ক্র্যানবেরি (cranberries), ডিম (eggs), অ্যাভোকাডো (avocados) ইত্যাদি আপনার খাদ্য তালিকায় যোগ করা আবশ্যক।

০২. ব্যায়াম (Exercise): এক সপ্তাহের মধ্যে ৪ ঘন্টার জন্য শরীর চর্চা করলে শরীরে ইস্ট্রজেন (estrogen) এর মাত্রা কমে যায় এবং আপনার স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম হয়।

০৩. ধূমপান বন্ধ করুনঃ আজকাল নারী ও স্কুল ও কলেজ পড়ুয়া তরুণীদের মাঝেও ধূমপানের আসক্ত দেয়া যায়। ধূমপান স্বাস্থ্যে অনেক রোগ ব্যাধি নিয়ে আসে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে স্তন ক্যান্সার এবং গর্ভধারোনের বাঁধা। যেসব নারীরা ধূমপান করেন তাঁদের স্তনে ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা অ-ধূমপায়ী নারীদের থেকে ৩০ শতাংশ বেশি।

০৪. মদ্যপান বন্ধ করুনঃ আধুনিক যুগের নারীদের মধ্যে মদ্যপানও লক্ষ্য করা যায়। মদ ধূমপানের মত অত ক্ষতিকর নয়। অল্প পরিমাণে এলকোহল ঠিক কিন্তু অধিক পানে শুধুমাত্র আপনার শরীরের অঙ্গের ক্ষতি করে না বরং এটা আপনার পেশীকে শক্ত করে দেয়। গবেষণা থেকেও প্রমাণিত হয় যে, অত্যাধিক মদ্যপানের জন্যে স্তন ক্যান্সার হতে পারে।

০৫. নিদ্রা কালীন দেহ ভঙ্গীঃ ভাল ভাবে স্তন বৃন্তের যত্নের জন্য আপনার শোওয়ার অবস্থান প্রতি সতর্ক হোন। আপনি পেটের উপর চাপ রেখে শুলে তা আপনার স্তন এবং পাকস্থলীর উপর চাপ পড়ে এবং একে বাড়তে দেয় না। ঘুমানোর এই পদ্ধতিটি একদমই আপনার জন্য স্বাস্থ্যকর নয়।

সবশেষে, আপনার মনে রাখার প্রয়োজন যে, সমগ্র স্তনের স্বাস্থ্য ভাল থাকলেই আপনি উজ্জ্বল ও ভাল স্তন পাবেন।

আপনি আপনার পছন্দের প্রতিকার ব্যবহার করা শুরু করুণ এবং খুব শীঘ্রই এই অংশে উন্নতি করতে পারবেন।

কিছু পরামর্শ (Tips)

০১. মাল বেরি নির্যাস (Mulberry extracts) : আপনি মাল বেরি (Mulberry) বা ল্যাকটিক অ্যাসিড (lactic acid) ব্যবহার করতে পারেন। কারণ এগুলি ভিটামিন সি (vitamin C) এর ভাল উৎস হিসেবে কাজ করে। এগুলির সাহায্যে খুব সহজেই স্তনের বোঁটাকে উজ্জ্বল করা যায় এবং ব্রণ বা ফোড়ার চারপাশের ত্বকে যে কালো দাগ তৈরি হয় সেই অংশকে বিবর্ণ করে দেয় এবং নতুন ত্বক উৎপন্ন হয়। ফলে আপনার ত্বক হয়ে ওঠে গোলাপি।

০২. অ্যাব্রুটিন (Arbutin) : এটি স্তনকে উজ্জ্বল করে। এটা কালো চামড়া অপসারণ করে এবং নতুন কালো চামড়া তৈরি হতে বাধা দেয়। এটা ত্রায়সিনেজ (tyrosinase) কমিয়ে ফেলে এবং মেলানিন (melanin) উৎপন্ন করে।

০৩. যদি আপনার কাছে উপরে উল্লিখিত উপাদানগুলো বিদ্যমান না থাকে তাহলে আপনি কমলা-লেবু, শসা, মধু, দুধ এবং অ্যাভোকাডো ব্যবহার করতে পারেন। । এগুলোও ত্বককে উজ্জ্বল করতে গুরুত্ব পূর্ণ ভাবে সাহায্য করে।

০৪. ভিটামিন সি (vitamin C ) এর বিকল্প গুলি গ্রহণ করুন কারণ এগুলি কালো চামড়া তৈরি হতে বাধা দেয়। ভিটামিন সি ((vitamin C ) ) এন্টি – অক্সিডেন্ট (anti-oxidant ) – এর একটি ভাল উৎস যা শুধুমাত্র আপনার শরীরের অংশকে উজ্জ্বল করে তাই নয়, এটির ব্যবহারে আপনি পান একটি প্রখর দীপ্তি এবং আপনি হয়ে ওঠেন স্বাস্থ্যকর।

০৫. কমলা লেবু নিয়ে একটি জুস তৈরি করুন এবং তারপর এটি স্তনের নির্দিষ্ট এলাকায় প্রয়োগ করুন। এটা ভাল ভাবে শুকিয়ে যেতে দিন। দ্রুত ফল পাওয়ার জন্য এক দিন অন্তর পুনরাবৃত্তি করুন। আপনার ত্বকে জ্বলুনি বা চুলকানি হয় তাহলে অন্য উপাদান ব্যবহার করুন।

০৬. এছাড়াও আপনি এই উদ্দেশ্যে যষ্টিমধু (Liquorice ) ব্যবহার করতে পারেন। এটিও আপনার জন্যে একই কাজ করে। আপনি আপনার স্তনের এবং যোনি দেশ পরিষ্কার করার জন্যেও এই যষ্টিমধুর নির্যাস ব্যবহার করতে পারেন। আপনার শরীরের সহ্য ক্ষমতা অনুযায়ী আপনি এটাকে ঠাণ্ডা বা গরম করে ব্যবহার করতে পারেন। আপনি প্রাকৃতিক ভাবে এগুলি না পান, তাহলে আপনি একটি পাওডার কিনতে পারেন এবং তারপর এটিকে পানির সাথে যোগ করুন। নির্দিষ্ট অঞ্চলের উপর এটি প্রয়োগ করুন এবং আপনি দেখতে পাবেন যে এটি অন্যান্য প্রতিকারের চেয়ে দ্রুত কাজ করে।

পরিশেষে, এটা মনে রাখতে হবে যে আমাদের শরীর অনেক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায় এবং আমরা বেড়ে ওঠার সাথে আমাদেরকে বিভিন্ন অবস্থার সাথে মানিয়ে নিতে হবে। মাঝে মাঝে আমরা নিজেদের ভাল চেহারা তৈরীর কাজে সফল হয়, কিন্তু আমদেরকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে আমরা সবাই অদ্বিতীয়, অনন্য এবং চিরকাল সুন্দর।

এই আর্টিকেলটি শেয়ার করে আপনার বন্ধু-বান্ধবীদের জীবনের মান-উন্নয়ণে সহায়তা করুন। আপনার একটু সহযোগিতায় তাদের জীবন হোক সুন্দর ও আনন্দময়। আমার বাংলা পোস্ট সামজিক ব্লগে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। 

এই আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার প্রতিক্রিয়া জানাতে রেটিং দিন!

0%

এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনার কাছে কেমন লেগেছে আমাদেরকে জানাতে আপনার রেটিং প্রয়োগ করুন। আপনার রেটিং সাইটের আর্টিকেল রচনায় মান উন্নত করতে সাহায্য করবে।

আরো রূপচর্চার টিপস দেখুন
User Rating: 5 ( 1 votes)

About Syed Rubel

Creative Writer/Editor And CEO At Amar Bangla Post. most populer bloger of bangladesh. Amar Bangla Post bangla blog site was created in 2014 and Start social blogging.

Check Also

স্ট্রেইটনার মেশিন ছাড়াই বাঁকা চুল সোজা করার উপায়!

চুল নারীর জন্য হচ্ছে প্রকৃতির এক অনন্য উপহার । আর তাই এই চুল নিয়ে নারীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: