Home / স্বাস্থ্য / খাদ্য ও পুষ্টি / জেনে নিন মিষ্টি কুমড়ার স্বাস্থ্যগত উপকারিতা
মিষ্টি কুমড়া

জেনে নিন মিষ্টি কুমড়ার স্বাস্থ্যগত উপকারিতা

সহজলভ্য ও মজাদার একটি সবজির নাম মিষ্টি কুমড়া। সারা বছরই কাঁচা-পাকা ও দেখতে সুন্দর এ সবজিটি পাওয়া যায়।

অনেকেই স্বাদের কারণে  মিষ্টি কুমড়া পছন্দ করেন। মিষ্টি কুমড়াকে বলা যেতে পারে পুষ্টির ভান্ডার। নাম ও স্বাদের মতো এর আছে দারুণ পুষ্টিগুণও ।

মিষ্টি কুমড়ায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন। এটি ভিটামিন এ-তে রূপান্তরিত হয়, যা চোখের জন্য খুবই উপকারী। রয়েছে প্রয়োজনীয় ফাইবার। তার সাথে আরো আছে পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ভিটামিন সি ও অন্যান্য পুষ্টিগুণ। শুধু চোখের অসুখে নয়, ভিটামিন এ-এর অভাবজনিত অন্যান্য রোগেও মিষ্টি কুমড়া উপকারী।

গাজরের তুলনায় মিষ্টি কুমড়াতে অধিক পরিমাণে বিটাক্যারোটিন থাকে। যেখানে গাজরে রয়েছে ১৩ মিলিগ্রাম বিটাক্যারোটিন, সেখানে  মিষ্টি কুমড়াতে রয়েছে ৩৩ মিলিগ্রাম বিটাক্যারোটিন। বিটাক্যারোটিন হচ্ছে এক ধরনের শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। বিভিন্ন দূষণ, স্ট্রেস ও খাবারে যে সব কেমিক্যাল ও ক্ষতিকর উপাদান থাকে সেগুলোর কারণে ফ্রি রেডিকাল ড্যামেজ হতে শুরু করে। ফ্রি রেডিকাল ড্যামেজের ফলে শরীরের ভালো কোষগুলো নষ্ট হতে শুরু করে এবং খারাপ কোষের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে। শরীরের ফ্রি রেডিকাল ড্যামেজ প্রতিরোধ করতে মিষ্টি কুমড়া ভূমিকা পালন করে।  সবুজ, কমলা, হলুদ রঙের সবজিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি পরিমাণে থাকে। তাই মিষ্টি কুমড়া ফ্রি রেডিকাল ড্যামেজ প্রতিরোধ করতে পারে।

মিষ্টি কুমড়া ছবিপুষ্টিবিদরা জানান, রান্না করা মিষ্টি কুমড়ায় অধিক পরিমাণ ক্যারোটিনয়েড ও ভিটামিন পাওয়া যায়। কারণ রান্না করলে এর জলীয় অংশ চলে যায়। সাধারণত মিষ্টি কুমড়া ভেজে খাওয়া হয়।

অনেকে সঙ্গে ছোট চিংড়ি দিয়ে দেন। আবার ডাল দিয়ে রান্না করার চলও রয়েছে। কেটে কনডেন্স মিল্ক মিশিয়ে পুরি তৈরি করে খাওয়া যায়।

তাতে পুষ্টিগুণ একটুও কমে না। সিদ্ধ করে পিষে ঝাল মসলা দিয়ে সাধারণত খাওয়া হয়। এটি শিশুদের জন্য ভাল। এ ছাড়া বেটা ক্যারোটিনের এন্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। আর এতে রয়েছে এন্টিএজিং গুণ। মিষ্টি কুমড়ায় ক্যালরির পরিমাণ একদম কম। তাই বেশি খেলেও চিন্তার কোন কারণ নেই।

মিষ্টি কুমড়ায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ যার কারনে তা সহজেই হজম হয়। হজমশক্তি বৃদ্ধি ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে মিষ্টি কুমড়ার জুড়ি নেই।

মিষ্টি কুমড়াতে প্রচুর পরিমাণে জিংক ও আলফা হাইড্রোক্সাইড রয়েছে। জিংক ইমিউনিটি সিস্টেম ভালো রাখে ও অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়া বয়সের ছাপ প্রতিরোধ করতেও মিষ্টি কুমড়া সাহায্য করে।

এই স্বাস্থ্য আর্টিকেলটি সম্পর্কে আপনার প্রতিক্রিয়া জানাতে রেটিং দিন

0%

প্রিয় পাঠক, এই স্বাস্থ্য সম্পর্কিত তথ্য মূলক আর্টিকেলটি আপনার কাছে কেমন লেগেছে তা আমাদেরকে জানাতে একটি রেটিং দিন। আপনার দেওয়া রেটিং আরো ভালো মানের আর্টিকেল লিখতে সাহায্য করবে।

User Rating: Be the first one !

About Syed Rubel

Creative Writer/Editor And CEO At Amar Bangla Post. most populer bloger of bangladesh. Amar Bangla Post bangla blog site was created in 2014 and Start social blogging.

Check Also

লাউ শাকের উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

লাউ শাকে রয়েছে নানান রকমের উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ। লাউ শাক গর্ভস্থ শিশু,সংক্রমণ,কোষ্ঠকাঠিন্য সহ অন্যান্য রোগ-প্রতিরোধে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *