Home / World Blog / বাংলা ব্লগ / চাষার ছেলেরা আবার পড়ালেখা করবে! অনামিকা খুশবু অবনী
চাষার ছবি

চাষার ছেলেরা আবার পড়ালেখা করবে! অনামিকা খুশবু অবনী

বেশ কিছু দিন আগেও পৃথিবীর সব থেকে খুঁতখুঁতে জাতি ছিল হিন্দুরা। তারা মুসলমানদের কতটা ঘৃণা করতো সেটা বলার মত না। এর জলজ্যান্ত প্রমাণ ছিলেন স্বয়ং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান! উনি একবার তাঁর এক হিন্দু বন্ধুর বাড়িতে গিয়েছিলেন। বন্ধুর মা তাঁকে মিষ্টি-নাড়ু খেতে দিয়েছিলেন স্নেহভরে। বঙ্গবন্ধু বাড়ি ফিরে এলে সন্ধ্যায় সেই বন্ধুটি কাঁদতে কাঁদতে এসে বঙ্গবন্ধুকে বলেন,
"তোকে খেতে দিয়েছিল বলে মাকে দিয়ে পুরো বাড়ি ধুইয়ে নেওয়া হয়েছে।"
বঙ্গবন্ধু তখনই বুঝেছিলেন, আর যাই হোক – মুসলমানদের স্বতন্ত্র একটা দেশ না থাকলে চলবে না।
শুধু বঙ্গবন্ধুই নন, ভারত-পাকিস্তান আলাদা হওয়ার আগে মুসলমানদের কি যে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে!
হিন্দুরা তাদের শুধু ছোট জাত বলেই যে সম্বোধন করতো তা না, কুকুর-বেড়ালের মত আচরণ করতো। কোন হিন্দু বাড়ির অন্দরমহলে এই "ছোট জাত" পা রাখতে পারতো না।
যারা উচ্চবংশীয় হিন্দু, তাদের বাড়ির সামনে দিয়ে জুতা পরে যাবে এমন সাহস কোন মুসলমানের ছিল না। পায়ের জুতা উঠতো বগলে।
সবচে' নিষ্ঠুর ব্যবহার করতো বোধহয় হিন্দু দোকানদারেরা।
টাকার বিনিময়ে মুসলমানদের মিষ্টি হোক যাই হোক, ছুঁড়ে দিতো তারা। যেমনটা আমরা কুকুর-বেড়ালকে খাবার ছুঁড়ে দিই। অদূরে দাঁড়িয়ে ক্রিকেট বলের মত সেই খাবার ক্যাচ ধরতো মুসলিম ক্রেতারা।
এই ঘৃণাটাকে এড়ানোর জন্যই মুসলমানদের স্বতন্ত্র রাষ্ট্রের দরকার ছিল। আর সেই দাবিটার প্রথম স্টেজ ছিল বঙ্গভঙ্গ। ঢাকাকে রাজধানী করে আসামসহ পূর্ব বাংলা মিলিয়ে ১৯০৫ সালে আলাদা রাজ্য গঠিত হয়। আর এতে করে মুসলমানদের মাথা উঁচু করে বাঁচবার স্বপ্ন পূরণ হতে থাকে।
আর এতে বাধ সাধে কে জানেন?
স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর! সাথে অন্য দাদারা তো ছিলেনই।
মুসলমানরা কোলকাতার হিন্দু দাদাদের বাণিজ্যের বাইরে চলে যাবে এটা দাদাদের কেউ মানতে পারেনি। আর এ কারণেই স্বদেশী আন্দোলন। বস্তুত, স্বদেশী আন্দোলন ছিল মুসলমানদের স্বাধীনতাকে ঠেকানোর আন্দোলন।
প্রকারান্তরে বাংলাদেশ এর স্বাধীনতা ঠেকানোর আন্দোলন।
তা ঠেকাতেই রবীন্দ্রনাথ লিখে ফেললেন,
"আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালবাসি।"
হ্যাঁ, রবিবাবুরা বাংলা ভালবেসেছেন, উপেক্ষিত থেকেছে শুধু বাংলার মুসলমানরা।
তাদের আন্দোলন বৃথা যায়নি। দুই বাংলা আবার এক হয়ে যায়। তবে পূর্ব বাংলার মানুষদের সান্ত্বনা দিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করার কথা বলা হয়। দাদাবাবুরা এতেও আপত্তি করেন।
একের পর এক প্রবন্ধ লিখেন দাদাবাবুরা। সেই প্রবন্ধের পরতে পরতে যে কথাটা হাইলাইটেড করা হতো তা হল,
"চাষার ছেলেরা আবার পড়াশোনা করবে?"
আর এতে সবথেকে বেশি কলম ধরেছেন কে জানেন? স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ!
তবু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হয়। আর এই প্রায় অসম্ভব কাজটা সম্ভব করার ক্ষেত্রে যিনি সবচে' এগিয়ে ছিলেন, তিনি স্যার সলিমুল্লাহ। এই মহান মানুষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে জমি দিয়েছেন, অর্থ দিয়েছেন আর প্রতিষ্ঠাও করেছেন। সাথে অন্য নেতারাও তো ছিলেনই।
সেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েই পড়েছেন বঙ্গবন্ধুর মতন মহান নেতারা।
আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রবীন্দ্রজয়ন্তী স্বাড়ম্বরে পালন করা হয়। স্যার সলিমুল্লাহজয়ন্তীর নাম শুনেছেন কখনো?
শোনেন নি নিশ্চয়ই। আমিও শুনিনি। শুনবোই বা কি করে? যে "আমার সোনার বাংলা" আমাদেরই বিরুদ্ধে রচিত, সেটাই আজ আমাদের জাতীয়সঙ্গীত। যেখানে বাংলাদেশের কোন অস্তিত্ব নাই।
অথচ এর চেয়েও আবেগঘন দেশের গান কিন্তু আমাদের মহান কবিরা-লেখকরা কম লিখেন নাই।
"প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ" – এই গানটিই তার জলজ্যান্ত প্রমাণ।
দেশ, দেশপ্রেম, আবেগ, দেশাত্মবোধ – কি নেই এতে?
কথা, সুরে "আমার সোনার বাংলা" থেকে কম কিসে? জাতীয়তাবাদে বরং কোটিগুণ এগিয়ে।
কিন্তু আমরা তো কাঙ্গালী জাতি, তাই নিজের দেশের 'গুড়' এর চেয়ে পরের দেশের 'গু' ই মিষ্টি লাগলো। যে আমাদেরই বিরোধিতা করলো তাকেই দিলাম রাজার পাঠ।
কবিগুরু ঠিকই বলেছিলেন। তার "রেখেছো বাঙ্গালী করে মানুষ করো নি" কথাটা বোধহয় বাংলাদেশের বাঙ্গালীদের জন্যই প্রযোজ্য!!!

লেখিকাঃ অনামিকা খুশবু অবনী

লেখিকার আরো কিছু পোস্ট…

০১। মানুষের মন | অনামিকা খুশবু অবনী

০২। নাবালকদের জন্য নহে- অনামিকা খুশবু অবনী

০৩। থার্টি ফার্স্ট নাইট এর গল্প

০৪। ফুলশয্যার কান্না ( বাস্তবধর্মী গল্প)

০৫। বাবা মুক্তিযুদ্ধ করেন!

আপনার গল্প কবিতা প্রকাশ করুণ |
আপনার লেখিত কোন গল্প-কবিতা আছে? থাকলে এখই আমার বাংলা পোস্ট.কমে প্রকাশ করুণ। আমরা আপনার লেখিত সামগ্রী হাজারো লোকের কাছে পৌঁছে দিবো। আপনার গল্প-কবিতা প্রকাশ করতে এখনই আমার বাংলা পোস্ট এ একটি একাউন্ট খুলুন অথবা আমাদেরকে মেইল করে পাঠিয়ে দিন। মেইল : Amarbanglapost@gmail.com মেইল আইডি না থাকলে ইমো’র মাধ্যমেও পাঠাতে পারেন। ইমো : 01741757725

About Syed Rubel

Creative Writer/Editor And CEO At Amar Bangla Post. most populer bloger of bangladesh. Amar Bangla Post bangla blog site was created in 2014 and Start social blogging.

Check Also

চলন্ত বাসে ধর্ষণ

চলন্ত বাসর (চলন্ত বাসে ধর্ষিত হওয়া থেকে যেভাবে রক্ষা পেলো তরুণী)

রাত ৮:৩০ গলফ ক্লাবের সামনে থেকে মিরপুরের উদ্দেশ্যে বাসে উঠলাম আমরা তিন বন্ধু।আঃ রহমান, সাজিদ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *