Home / যৌন জীবন / যৌন বিষয়ক নিবন্ধন / পুরুষের জননতন্ত্র

পুরুষের জননতন্ত্র

জীব জগতের জম্ম রহস্যকে সৃষ্টির এক বিচিত্র সৃষ্টি বলে যদি স্বীকার করে নেয়া হয়, তবে তাঁর মূলে রয়েছে শরীরের বিশেষ বিশেষ অঙ্গের দান। সেই অঙ্গগুলর রহস্যও সকলের জেনে রাখা কর্তব্য ।এখন প্রথমে পুরুষ ও স্ত্রী জননতন্ত্র সম্পর্কে ভাল জ্ঞান রাখা সকলের জন্যই প্রয়োজন ।

কতগুলো অঙ্গের সহযোগিতা ও সমন্বয়কে পুরুষ জননতন্ত্র বলা হয়। তম্মধ্যে পুরুষাঙ্গ বিশেষ প্রধান অঙ্গ। অন্যান্য অঙ্গ রতিক্রিয়ার সাহায্যকারী । পুরুষ জননতন্ত্র ও সাহায্যকারী অঙ্গগুলর রূপ কেমন তা উল্লেখ করা হচ্ছে- প্রথমত পুরুষ জননতন্ত্রকে দুভাগে ভাগ করা যেতে পারে। তাঁর একটি হল বাহ্যিক এবং অন্যটি হল আভ্যন্তরীন।

পুরুষ জননতন্ত্রের বাহ্যিক অঙ্গগুলো হচ্ছে-

১। পুরুষাঙ্গ। ২। লিঙ্গমনি । ৩। অগ্রচ্ছদা। ৪। মূত্রনালী। ৫। অন্ডকোষ বা শুক্রাশয়।

* * * * * * * * * * * * ** * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

১। পুরুষাঙ্গ

বাহ্যিক দিক হতে দেখলে আপাতত পুরুষাঙ্গ এবং অণ্ডকোষ বা শুক্রাশয় দু’টির কথায় বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। সাধারণত দেখা যায়, সকল পুরুষের পুরুষাঙ্গের দৈর্ঘ্যের মাপ এক রকম হয় না। স্বাভাবিক অবস্থায় পুরুষের লিঙ্গের দৈর্ঘ্য সোয়া তিন ইঞ্চি হতে চার ইঞ্চির মাঝামাঝি দেখা যায়। উত্তেজনার সময় তা সোয়া পাঁচ হতে ছয় ইঞ্চির কিছু লম্বা হয়ে থাকে । কিন্তু ব্যক্তি বিশেষে লিঙ্গের দৈর্ঘ্য তাঁর চেয়ে কম ও বেশি হয়ে পারে।

তাঁর চেয়ে সামান্য ছোট বড় হলে তাতে কিছুই আসে যায় না এবং সহবাসে কোন রকম অসুবিধা হয় না। পুরুষাঙ্গ অস্বাভাবিক ছোট বা বড় হলে সঙ্গম কালে স্ত্রীলোকের জন্য অসুবিধার কারণ হতে পারে।

কারো ধারণা , পুরুষাঙ্গ লম্বায় খুব বড় হলে স্ত্রী সহবাসে বেশি আনন্দ উপভোগ করা যায়। আসলে এরূপ ধারণা করা নিতান্তই বোকামী ছাড়া আর কিছুই নয়। লিঙ্গের দৈর্ঘ্য নিয়ে বাহাদুরী করা আহাম্মকি ছাড়া আর কিছুই নয়। আবার লিঙ্গের খর্বতা নিয়েও চিন্তা-ভাবনা করা হাস্যকর ব্যাপার ছাড়া আর কিছুই নয়। মোদ্দা কথা হল যে, স্ত্রী-পুরুষ উভয়েই সহবাসের সময় ঘর্ষণেই আনন্দ লাভ করে থাকে।

২। লিঙ্গমনি ।

লিঙ্গের মাথায় অংশটুকুকে লিঙ্গমনি বলা হয়। লিঙ্গের অন্যান্য অংশের চেয়ে এই অংশটা অপেক্ষাকৃত পুরু, চওড়া এবং বেশি সংবেদনশীল। যে চামড়াটুকু দিয়ে এই আবৃত (ঢাকা) থাকে, তাকে অগ্রচ্ছদা বলা হয়। লিঙ্গের উত্তেজিত অবস্থায় লিঙ্গমনিকে ঢেকে রাখা এবং চামড়া (অগ্রচ্ছদা) সাধারণত সরে গিয়ে উপরে উহে থাকে। অনেক ক্ষেত্রে যেই ছেলেদের ‘মুদা’ বা ফাইমোসিস থাকে, তাদের অগ্রচ্ছদা খুব ছোট এজন্য চামড়াটা সরে যেতে পারে না এবং লিঙ্গমনি বের হতে পারে না। এই অবস্থায় চামড়াটুকু কেটে ফেললেই ভবিষ্যতের জন্য খুবই উপকার। কারণ, যাদের লিঙ্গমনি সব সময় ঐ চামড়া দিয়ে ঢাকা থাকে তাদের সংবেদনশীলতা কমতে পারে না। সুতরাং রতিক্রিয়ার সময় শুক্র ধারণ ক্ষমতা কমে যায়। এছাড়া আরো বিপদও হতে পারে। যেমন- লিঙ্গমনি অগ্রচ্ছদা দ্বারা আবৃত থাকলে তাঁর ভিতরে অল্প করে ময়লা জমতে থাকে এবং তা নিয়মিত পরিস্কার না করলে বিভিন রোগ জম্ম নেয়। ফলে তাদের যৌন স্বাস্থ্য ভেঙ্গে যায় এবং পীড়িত হয়ে পড়ে।

সুতরাং – পিতা-মাতার খেয়াল রাখতে হবে যে, তাদের ভুলের জন্য ছোট বেলায়ই তাদের ভবিষ্যৎ বংশধরগণ রোগ্ন হয়ে না যায়। অতএব ছোট বেলাই, ছেলেদের লিঙ্গমনি ঢেকে রাখা ঐ চামড়া টুকু কেটে ফেললেই তারা ভবিষ্যৎ জীবনে উন্নত যৌন স্বাস্থ্যের অধিকারী হবে এবং তাদের ঔরসে সু-স্বাস্থ্য সম্পন্ন সন্তান জম্ম নিবে এবং স্রষ্টার ধারা বৃদ্ধি পেতে থাকবে। ইসলামী শরীয়াতে এভাবে লিঙ্গমনি ঢেকে রাখা চামড়াটুকু কেটে ফেলা সুন্নত । একে সাধারণত মুসলামানী বা খৎনা বলা হয়।

৪। মূত্রনালী।

লিঙ্গের ভিতর দিয়ে মুত্রাশয় হতে যে চিকন ও সরু নালিটি লিঙ্গের মুখ পর্যন্ত এসে পৌঁছেছে তাকেই মুত্রনালি বলা হয়। মুত্রাশয়ে জমে থাকা মুত্র (পেশাব) ঐ মুত্রনালী দিয়েই দেহ হতে বের হয়ে যায়।

৫। অন্ডকোষ বা শুক্রাশয়।

পুরুষাঙ্গ ব্যতীত অন্য একটি উল্লেখযোগ্য অঙ্গ হচ্ছে শুক্রাশয়দ্বয়। একে অণ্ডকোষ বা বীর্যধারও বলা হয়। সাধারণত একটি সুস্থ মানুষের শুক্রাশয় দুটি মুরগীর ডিমের ন্যায় বোর হবার কথা। কিন্তু এর চেয়ে ছোটও হতে পারে। তাতে কোনো অসুবিধা হয় না। তাদের ভিতরে বাম পাশেরটা ডান পাশেরটা অপেক্ষা ঈষৎ বড় হয়ে থাকে এবং নীচের দিকে ঝুলানো অবস্থগায় থাকে।

এ শুক্রাশয় দুটি যে চামড়ার থলির ভিতরে ভরা থাকে, তাকে ইংরেজীতে ‘স্কোটাম’ বলা হয়। ওই স্কোটামের ভিতরে আবার পৃথক পৃথক দুটি বিভাগ আছে। তাঁর প্রতিটি বিভাগের একটি করে শুক্রাশয় বা অণ্ডকোষ থাকে। ঐ শুক্রাশয় দুটির ভিতরে অনবরত শুক্র জীবানু তৈরী হয়ে চলেছে।

প্রিয় পাঠক/পাঠিকাঃ আমাদের সাইটের পোস্ট পড়ে যদি আপনার কাছে ভালো তাহলে শেয়ার করুণ। এবং আপনার বন্ধুদের কে আমন্ত্রণ জানান আমাদের সাইটে যোগ দেওয়ার জন্য। 

About Syed Rubel

Creative writer and editor of amar bangla post. Syed Rubel create this blog in 2014 and start social bangla bloggin.

Check Also

প্রেমের কথা

কলারূপে প্রেম- প্রেমের আবশ্যকতা ও প্রীতি-স্থাপনের উপায়

‘কলারূপে প্রেমের কথা শুনে অনেকে হয়তো চমকিয়ে উঠেছেন। যে #প্রেম নিছক মানসিক ব্যাপার মাত্র, তাঁকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *