Breaking News
Home / ব্লগ / এ যেন বর্ষবরণ নয়, অশ্লীলতা বরণের এক মহা উৎসব!!

এ যেন বর্ষবরণ নয়, অশ্লীলতা বরণের এক মহা উৎসব!!

সংস্কৃতি রক্ষা করতে বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রায় গিয়ে TSC তে বিবস্ত্র/লাঞ্ছিত হতে হয়েছিলো ১ তরুনীকে……

ওই একই দিন সন্ধ্যায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলো আরেক তরুনী….

তখন এ ব্যাপারে ইনবক্সে কিছু সুশীল আপুর বক্তব্য ছিলো এমন-

“আমরা নাভীর নিচে পাতলা কাপড় পরে অথবা একেবারে উলঙ্গ হয়েই রাস্তায় হাঁটবো বা মেলায় যাবো। তাই বলে আমাদের শ্লীলতাহানী করতে হবে??”

এশার মত সেদিন আমিও অঝোরে কেঁদেছি মনে মনে, কিছু বলতে পারিনি।

সংস্কৃতিTSC তে বৈশাখে প্রকাশ্য লেসবিয়ান স্টাইলে অন্য মেয়ের সাথে ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে লং কিস করতে পারে আমাদের আপুরা, পরিস্থিতি উত্তাল করে নিজেরাই আবার দোষ দেয় অন্যদের!!

কি হাস্যকর ব্যাপার!!!

মানেন আর না মানেন কিছু কিছু মেয়ে আছে এরা অনেক এগ্রেসিভ৷ এরা এসব অকেশনে বাইরে বেরই হয় এটেনশন পাবার জন্য৷

যখনি তাদের সেই গুপ্ত মনোবাসনা পূর্ণ করার জন্য কেউ উনাদের দিকে তাকাবে, অথবা মেলার ভিড়ে ‘ঠেলা’ দিবে অথবা শাড়ির আঁচল ধরে টানাটানি করবে……

তখনি উনাদের চেতনায় আঘাত লাগে, উনারা হয়ে যান ভদ্র আর তখনি তা লাঞ্ছনা/শ্লীলতাহানি হয়ে যায়!!!

মোটকথা-
পরিবেশকে যৌনপ্ললী বানিয়ে উনারা নিজেরা প্রস্টিটিউট সাজতে নারাজ…!!

নো! আই অ্যাম নট জাস্টিফাইং মলেস্টেসন হেয়ার…

আমাদের সমাজে এখনো পুরোপুরি সভ্য যুব সমাজ তৈরী হয়নি যে তাদের হাত থেকে নারীরা নিরাপদে থাকবে

খোদ গত ৭ই মার্চই পারফেক্ট উদাহরণ। যেখানে রাজনৈতিক প্রোগ্রামে যেতে যেতে রাস্তায় নারীদেরকে মলেস্টেসন করে মজা নিয়েছে কথিত সোনার ছেলেরা।

সে বিচার কখনো আলোর মুখ দেখবে কি না আই ডাউট।

এসব অসভ্য নপুংসক প্রজন্ম থেকে বাঁচার জন্য পুরুষদের যেমন সতর্ক হওয়ার দরকার আছে তেমনি নারীদেরও।

আদিম কালের ন্যাংটা মানুষেরা অসভ্য থেকে সভ্য হয়েছিল পোশাক আবিস্কার এর মাধ্যমে। অথচ সেই পোষাকই আমরা এখন অসভ্য স্টাইলে ব্যাবহার করি।

(কবি এখানে নারীর শ্লীলতাহানির জন্য ডাইরেক্টলি/ইনডাইরেক্টলি কোন ভাবেই শুধুমাত্র পোশাককে দায়ী করেনি। তাদের জিনিস তারা ঢেকে রাখবে, নাকি মাছি ধরার কাছে ইউজ করবে এটি তাদের ব্যাপার) 😉

তারা কুকুর যারা লোভ সংযত করতে না পেরে ঝাপিয়ে পড়ে। কুকুর ছিল, আছে এবং থাকবে। সুতরাং নারীকে একটু বেশি সচেতন হতে হবে।

পাশাপাশি অবশ্যই পুরুষেরও সচেতন হওয়া জরুরী। কুকুরের মতো অাচরন না করে মানুষের মতো আচরন করলেই Child Rape এবং নারীর অবমাননা/শ্লীলতাহানি কমবে।

মোটকথা নারী-পুরষ উভকেই সংযমী হতে হবে। একে-অপরকে দোষারোপ করে অন্যায়কে জায়েয করার যুক্তি দিয়ে Sexism increase করার পক্ষে আমিও নই।

In a word-
Not only girls are raped/harassed by boys but also boys are raped/harassed by girls. Both of them have sexual excitement. Both should lead their life in a controlled way.

আর বর্ষবরণ?

চল্লিশ বছর আগে শুরু হওয়া বর্ষবরণ মঙ্গল শোভাযাত্রা কোনো ভাবেই সংস্কৃতির মধ্যে পড়েনা।অথচ আমরা এটাকে করে ফেলেছি হাজার বছরের ঐতিহ্য।

আমাদের দেশে সব থেকে বেশি অনাকাংখিত ঘটনা এই পহেলা বৈশাখেই ঘটে/ঘটেছে।

এ যেন বর্ষবরণ নয়, অশ্লীলতা বরণের এক মহা উৎসব!!

এখন হয়তো আপনি বলবেন- আমি বৈশাখের বিরোধিতা করে পোস্ট দিয়েছি, আমি বাঙালি না…..আমি বাঙালি নামের কলংক…

(কবি এখানে নীরব)

বৈশাখে নারীর শাড়ি টেনে খুলে বিবস্ত্র করে ফেলার ঘটনা ঘটবে, কিংবা বাসের পেছনে নিয়ে ঠেলাঠেলি চলবে, নতুবা লাল পর্দার রুমে নিয়ে দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ হবে……

So what!!??

U have to বুঝতে হবে….

বস্ত্র হারাইবেন, ইজ্জত হারাইবেন…তো কি হইছে!!??

‘কথিত’ সংস্কৃতি তো আর হারাইবেন না…..

লেখকঃ নীল সালু

About Syed Rubel

Creative writer and editor of amar bangla post. Syed Rubel create this blog in 2014 and start social bangla bloggin.

Check Also

রবীন্দ্রনাথ কি আসলেই বিশ্বকবি না পশ্চিমবঙ্গের কবি ???

রবীন্দ্রনাথ কি আসলেই বিশ্বকবি না পশ্চিমবঙ্গের কবি এ বিষয়টি ভাবতে গেলে স্বভাবতই নীচের প্রশ্নগুলো মনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Optimization WordPress Plugins & Solutions by W3 EDGE