Home / ব্লগ / অনেক কিছু আসে যায় | রেহনুমা বিনতে আনিস

অনেক কিছু আসে যায় | রেহনুমা বিনতে আনিস

লেকচারার হওয়ার একটা বিশেষ সমস্যা হল অনেক সময় নিজের অজান্তেই লেকচার দেওয়া হয়ে যায়। এই যেমন আমি আইআইইউসি’র বেতনের জন্য ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট করতে গেলাম। তখন আমার বিয়ে হয়েছে। তাই স্বাভাবিকভাবেই জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট করছি। হাফিজ সাহেবের মতো লোকের সাথে বিয়ে হওয়ার একটা বিশেষ সমস্যা হল ওনার এত বেশি বন্ধু-পরিচিত যে কোথাও গিয়ে একটু প্রাইভেসী পাওয়া যায় না। আমরা দুজনেই এত ব্যস্ত থাকতাম যে দুজনের দেখা সাক্ষাতই হত না। বাসায় যেটুকু সময় থাকতাম সেটাও ওনার বন্ধুদের টেলিফোনের দখলে। ব্যাংকে এসেও দেখি যে ভদ্রলোক আমার অ্যাকাউন্টের কাজ করছেন তিনি হাফিজ সাহেবকে চেনেন। আমি আর কথা না বাড়িয়ে চুপচাপ ফর্ম ফিলাপ করতে লাগলাম। কথায় কথায় ব্যাংকার ভাই বললেন, ‘ভাবী তো দেখছি নাম চেঞ্জ করেননি!’ আর পায় কে? কলম রেখে বক্তৃতা শুরু করলাম, ‘ভাই, আপনি এ কথা বলবেন তা আশা করিনি। আমার বাপ আমাকে জন্ম দিল, পেলেপুষে বড় করল, লেখাপড়া শেখাল, বিয়ে দিল আর আমি আজকে একটা স্বামী পেয়ে বাপের নাম বাদ দিয়ে দেব?! পৃথিবীতে সবচেয়ে ভালো স্বামী কে ছিল বলেন তো? রাসূল (সাঃ), তাইনা? অথচ আয়শা (রাঃ)’র নাম তো মিসেস আয়শা মুহাম্মদ ছিল না! তার নাম বিয়ের আগে পরে আয়শা বিনতে আবু বকরই ছিল। নাম পরিবর্তন করে ফেলা আমাদের সংস্কৃতি না। আমরা অকৃতজ্ঞ নই। স্বামীর সাথে সম্পর্ক তিনটা শব্দ উচ্চারণ করলে পরিবর্তন হয়ে যায়। কিন্তু বাপের সাথে সম্পর্ক কখনো ছিন্ন হয়না’। উনি ভড়কে গিয়ে, ‘ঠিক, ঠিক’ বলতে বলতে তাড়াতাড়ি আমার অ্যাকাউন্ট করিয়ে দিলেন।

আমার মেয়ের জন্মের পর আমি ঠিক উল্টো সমস্যায় পড়লাম। মেয়ে হবার আগে কোরআন থেকে সুন্দর সুন্দর শব্দগুলো বেবছে বেঁছে দশটা ছেলের আর দশটা মেয়ের নাম ঠিক করলাম। মেয়ের নাম নির্বাচন করা হল ঐ তালিকা থেকেই। কিন্তু শেষের নাম কি হবে তা নিয়ে গোলযোগ বেঁধে গেল। ওদের পরিবারে ট্রেডিশনালি ছেলেদের নামের সাথে পারিবারিক টাইটেল যোগ করা হয়। কিন্তু মেয়েদের নামের সাথে ‘সুলতানা’লাগিয়ে দিয়েই কর্মসম্পাদন করা হয়। আমি হাফিজ সাহেবকে বললাম, ‘আজকে যদি আমার ছেলে হত তাহলে তার নাম হত অমুক রহমান, কিন্তু আমার মেয়েকে যদি রাদিয়া সুলতানা ডাকা হয় তাহলে তার পরিচয় কি? সে কার মেয়ে, কোন পরিবারের মেয়ে? সুলতানা মানে রাজকন্যা—খুব ভালো কথা। কিন্তু এটা একটা মেয়ের প্রথম নাম হতে পারে, শেষ নাম হিসেবে এটা আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারি না। ফাতিমা (রাঃ)’র নাম কি ফাতিমা খাতুন বা বেগম বা সুলতানা ছিল? তার নাম ছিল ফাতিমা বিনতে মুহাম্মদ। তার পিতৃপরিচয় ছিল তার নামের অবিচ্ছেদ্য অংশ। তাহলে আমার মেয়ে কেন তার হক থেকে বঞ্চিত হবে? শেষ পর্যন্ত অনেক আলোচনা পর্যালোচনার পর আমার সন্তান তার অধিকার পেল।

আমাদের এসএসসি পরীক্ষার ফর্ম ফিলাপের সময় সবচেয়ে চমকপ্রদ ঘটনা ছিল আমাদের এক বান্ধবীর নামের এন্ট্রি। ওর বাবা লিখে দিয়েছেন ওর নাম ‘স্বর্না’, শুধুইও স্বর্ণা! প্রিন্সিপাল স্যার পর্যন্ত আংকেলকে ফোন করে বললেন ওকে একটা ‘লাস্ট নেম’ দেওয়ার জন্য। কিন্তু ওনি শুধু বললেন, ‘ওর কিছুদিন পর ‘লাস্ট নেম’ হয়ে যাবে, এখন শুধু স্বর্নাই যথেষ্ট’! বেচারীর এই নামে বোঝার কি কোনো উপায় ও কার মেয়ে, কোন পরিবারের মেয়ে, মুসলিম না হিন্দু? এটা তো শুধু একটা ঘটনা। এরকম যে আরো কত দেখেছি! সেদিক থেকে চিন্তা করলে আমি খুব ভাগ্যবতী ছিলাম।

আমরা প্রায়ই ছেলেদের নাম রাখার সময় অনেক চিন্তাভাবনা করে সুন্দর নাম রাখার চেষ্টা করি। তার নামের সাথে কি পরিবারের বা অন্তত বাপের নামের যোগসূত্র স্থাপন করা যায় তা নিয়ে ভাবিত হই। অথচ মেয়েদের নাম রাখার সময় প্রায়ই তাতে ইসলামের ছোঁয়া থাকে না। নামের শেষেও কোনো রকমে একটা কিছু দিয়ে দেওয়া হয়। ধরে নেওয়া হয় বিয়ের পর তো তার নাম পরিবর্তন হয়েই যাবে। তাঁকে কোনো এক সময় অন্য পরিবারে স্থানান্তর করা হবে ভেবে প্রথম থেকেই তাঁকে পরিবারের নাম থেকে পর্যন্ত বঞ্চিত করা হয়। অথচ সে যাকেই বিয়ে করুক না কেন আল্লাহ তাঁকে আমার ঘরেই পাঠিয়েছেন। তার প্রতি আমার ন্যায় আচরণ করলাম কিনা তার ওপর বেহেশত দোযখ নির্ভর করছে। একটা মেয়ের আগমনের সাথে সাথে তাঁকে পর করে না দিয়ে যদি সে কোনো দিন চলে যাবের ভেবে তাঁকে আমরা আরেকটু বেশি আদর করতাম তাহলে কি আমাদের খুব বেশি ক্ষতি হত? সামান্য একটা নাম, তাতে আমার উভয়প্রকার সন্তানের সমাধিকার নিশ্চিত করাটা কি খুব কঠিন কোনো কাজ? আমাদের এই মানসিকতার পরিবর্তন হোক। আমরা যেন এই ব্যাপারে আরো সচেতন হই।

লেখিকাঃ রেহনুমা বিনতে আনিস।

লেখিকার বইঃ বিয়ে থেকে প্রকাশিত।

About Syed Rubel

Creative writer and editor of amar bangla post. Syed Rubel create this blog in 2014 and start social bangla bloggin.

Check Also

এন্ড্রয়েড ফোনে Unfortunately has stooped সমস্যার সমাধান

Unfortunately has stooped এন্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্য একটি বড় ধরণের সমস্যা ৷ যারা ১ গিগাবাইট বা …

One comment

  1. দারুণ বলেছেন আপু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *