Breaking News
Home / সাহিত্য / কিছু গল্প / সুখ (স্বামী স্ত্রীর ভালোবাসার গল্প)

সুখ (স্বামী স্ত্রীর ভালোবাসার গল্প)

গল্প  ঃ সুখ

লেখিকা ঃ শারমিন রহমান

বিভাগ : গল্প

গল্পের টপিক্স : স্বামী স্ত্রীর ভালোবাসার গল্প

–এইযে নবাবজাদী শুয়ে আছেন কেনো???
দেখতে পাচ্ছেন না হাজবেন্ড বাসায় এসছে??
খাবার রেডি করেন। ফ্রেশ হয়ে আসছি।

–ফারহানা বিরক্ত ভঙ্গিতে বললো,সব টেবিলে দেয়া আছে। অন্যকে বিরক্ত করবেন না।

–কেউ কি জানে না যে আমি একা খেতে পারিনা???
উঠে টেবিলে বসুক। আমি আসছি।

সুখসোহেল ওয়াশরুম থেকে এসেও দেখলো ফারহানা শুয়ে। মেয়েটার আজ ভীষণ অভিমান হয়েছে। বেড়াতে নেয়ার কথা বলেও যখন সোহেল অফিসের কাজে ব্যস্ত হয়ে যায় তখনই শুরু হয় মান অভিমান। ফারহানার অভিযোগ হলো ওর জন্য টাইম ম্যানেজ করতে গেলেই কেনো এতো ঝামেলা হবে???
কিন্তু কিছু করার থাকেনা যখন কাজ পড়ে যায়।

যাহোক,এতোদিন ফারহানার রাগ অভিমান হলে তা ভাঙ্গাতে কিছুটা বেগ পেতে হতো সোহেলের। অনেক অনুনয় বিনয় করে সরিটরি বলে রাগ ভাঙ্গাতে হতো। সোহেল জানে মেয়েরা প্রকৃতি গতই খানিকটা বাঁকা। তাই সব পুরুষের উচিৎ সাধ্যমতো সেই বাঁকার সাথে মিশে গিয়ে মানিয়ে নেয়া।

আজ সোহেল আর সরি বলে রাগ ভাঙ্গাবেনা। অন্য কৌশল করবে সে।
ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলিটা একটা সাদা কাপড় দিয়ে বেঁধে সেখানে বৌকে কিনে দেয়া আলতা থেকে খানিকটা লাগাবে। বৌয়ের হাতে খাওয়ার জন্যই এই চালাকি। তাহলে তার রাগ ভাঙ্গাতে সহজ হবে। আর ফারহানা প্রাণ গেলেও স্বামীকে না খেয়ে ঘুমাতে দিবেনা এটা সোহেল ভালোভাবেই জানে।

আলতার ব্যাপারটা বলি,সোহেল সবসময় বৌয়ের আলতা পায়ে নুপুর পড়া রিনিকঝিনিক শব্দ শুনতে ভালোবাসে। সে চায় সবসময় ফারহানা তার আশপাশ গিয়ে ঘুরে বেড়াবে আর নুপুরের ধ্বনির প্রতিধ্বনি হবে সারা ঘরময়। সেটা শুধু অন্দরমহলেই। শুধু তার জন্য। তাই সে সবসময় নুপুর আর আলতা কিনে দেয় ফারহানাকে।

–এইযে আমিও শুয়ে পড়লাম। পেটে ক্ষুধা কিন্তু হাত কেটে যাওয়ায় খেতে পারছিনা।
গুড নাইট।

ফারহানা চমকে উঠলো। হাত কেটে গেছে মানে??? খানিকটা ইতস্তত করে উঠে বসে। স্বামীর হাত টেনে দেখে সত্যিই কেটে গেছে।

–কি করে হলো?? রাগের স্বরে।
–আমি ঘুমাবো। ডোন্ট ডিস্টার্ব।
–হঠাৎ খুব ভাব বেড়ে গেছে মনে হচ্ছে??
–একজনের ভাব থাকলে আমারও থাকতে পারে।

–উঠে আসেন। খাবার বাড়ছি।
সোহেল উঠছেনা। আরও কয়েকবার বলুক সেটাই চাইছে।
–বলছিনা উঠে আসতে??? কথা কানে যায়না???
–থাক রেখে দেন আমারটা। আপনি খেয়ে নেন। হাতে ব্যাথা আমার। পারবোনা খেতে।

এবার ফারহানা এক প্লেটে খাবার নিয়ে বেড রুমেই চলে আসলো।
–আপনার হাতে ব্যাথা। আমার হাত কি অচল হয়ে গেছে??? সবসময় এই দু হাতেই তো আপনাকে আর আপনার ঘর সংসার সামলে যাচ্ছি। সারাজীবন করে যেতে হবে। আপনার বাবু আসলে তাকেও সামলাতে হবে। কক্ষনো বিশ্রাম পাবোনা। নিন হা করুন।

ফারহানার হাতে ভাতের লোকমা মুখে পুড়ে নিতে নিতে সোহেল বললো….
–ওমা বাবু কি একা আমার??? আর এই সংসারও একা আমার না। সবই তো আপনার। আপনার জন্যই এতোকিছু। এতো আয়োজন।
মুখ ভেঙ্গচি কাটলো ফারহানা।

দ্বিতীয় লোকমা মুখে নেয়ার আগে সোহেল বলে,
–তুমি না খেলে আর খাবোনা।
বাধ্য হয়ে বিরক্ত ভঙ্গিতে নিজের গালে একবার আর স্বামীর গালে একবার খাবার পুড়ে দেয় ফারহানা।

–শুনো ময়না। মাত্র দুদিন পরই তো ফ্রাইডে। তুমি যেখানে যেতে চাইবে সেখানেই ডান…..
আজকে তো কোনোভাবেই হলোনা।
–আপনি যা চান তাই হবে। তবে আজকে যাওয়া জরুরী ছিল। ডাক্তার ম্যাম মঙ্গলবার এখানকার চেম্বারে বসেন।
–ডাক্তার হঠাৎ?? কিছু হয়েছে? শরীর খারাপ??
–কালকে থেকেই মাথা ঘুড়াচ্ছে। শরীর দূর্বল লাগছে।
–সেকি তাহলে কালকেই চলো।
–লাগবেনা। এখন ঠিকাছি।
–তবুও একবার যাই….?
কিছু বললোনা ফারহানা।

খাওয়া সেরে দুজন শুতে যায়। টুকটাক কথাবার্তা বলতে বলতে একসময় ঘুমের দেশে হারিয়ে যায় সোহেল।

ফারহানা উঠে টেবিলে বসে। কাগজ কলম নিয়ে কিছু লিখবে সে।

ওদের ঘরে একটা অভিযোগ বক্স রাখা আছে। কোনো বিষয়ে দুজনের চিন্তাভাবনা বা মতামত ভিন্ন হলে ঝগড়া বা তর্কাতর্কি না করে দুজনেই মনের কথা লিখে সেই বক্সে রেখে দেয়। একজন লিখলে অপরজন পড়ে নেয়। এভাবে নিজেদের মাঝে সবসময় সমঝোতা বজায় রাখার চেষ্টা করে দুজনে। তাছাড়া ওরা বিশ্বাস করে ঝগড়া করে সহজে কোনো সমাধানে আসা যায়না। সেজন্যই এই উপায়। এছাড়াও দুজন দুজনের যেকোনো মনের কথা যেগুলো মুখে ঠিক ভাবে বোঝানো যায়না সেসব কিছু লিখে রাখে সেই বক্সে।

আজও লেখা শেষে সবসময়ের মতোই কাগজটা বক্সে রেখে দেয় ফারহানা।
আজ তার দুচোখে ঘুম নেই। পুরো নির্ঘুম একটা রাত কেটে গেলো। মনে অন্যরকম সুখ সুখ অনুভব হচ্ছে তার। অন্যরকম অনুভূতি!
ভোরে ফজর পড়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিতেই চোখ জোড়া নিভে আসে ফারহানার।

সোহেল সারারাত ঘুমিয়েছে। একবারের জন্যও জাগেনি। সকালে উঠে নামাজ পড়ে। সে দেখলো আজ ফারহানাও উঠছেনা। অন্যদিন তো তাকে নাস্তা রেডি করে দেয়ার তাড়নায় উঠে পড়ে।

–ফারহানা! ফারহানা!
মৃদু স্বরে ডাক।
–হু?
ঘুমের ঘোরে ফারহানা।
–নামাজ পড়েছ!?
–হুম…
অস্পষ্ট স্বরে।

দেখলো গভীর ঘুমে ফারহানা। আর ওকে ডাকেনা সোহেল। ভাবে কাল এমনিতেই বললো শরীর খারাপ। থাক ঘুমাক ও। নাস্তা বাইরে কোথাও করে নেয়া যাবে।

সোহেল অফিসের জন্য তৈরি হয়েও ঘড়িতে দেখে অফিসের গাড়ি আসতে আরও আধঘন্টার মতো বাকি….
সে ভাবে দেখিতো কাল অভিমান করে বক্সে কিছু লিখে রেখেছে কিনা ও!?

সত্যি সত্যিই একটা চিঠি পায় সোহেল….
তাতে লেখা….

“”ডান হাতের দিকে তাকাও। হাতের ব্যান্ডেজটা নেই। হুম রাতে যখন ঘুমাচ্ছিলে আমিই খুলেছি। হাত কাটার অভিনয়টা না করলেও পারতে। বললেই আমি নিজ হাতে খাইয়ে দিতাম। এই আবদার কি আজ অব্দি ফেলেছি আমি?? বরং ইচ্ছে করেই খাইয়ে দিয়েছি।

গতকাল বেড়াতে নয়। সত্যিই ডাক্তারের কাছে যেতে চেয়েছিলাম। ফোনে যখন বললে বিজি হয়ে গেছো তখন আর ডাক্তারের কথা বলে টেনশন দিতে চাইনি।
মাকে ফোন করে অসুস্থতার কথা জানালে মা সাজেশন দেয় নিজে ঘরে বা পাশের ক্লিনিকে গিয়ে একটা টেস্ট করাতে।
করালাম। আর হ্যাঁ টেস্টের রেজাল্ট পজেটিভ!!
আপনি বাবা হতে যাচ্ছেন।
এই সাবধান! চোখে যেনো পানি না আসে। মনের সুখে ঠোঁটে একরাশ খুশির বন্যা বয়ে যাক””…….

….ইতি আপনার প্রিয় অর্ধাঙ্গিনী….

সত্যিই আনন্দে চোখের কোণে নোনাজল চিকচিক করে ওঠে সোহেলের…..
মাথা ঘুরিয়ে ঘুমিয়ে থাকা স্ত্রীর পবিত্র মুখখানার দিকে অপলক চেয়ে থাকে সে।
ইচ্ছে করছে স্ত্রীকে বুকে টেনে নিয়ে বলতে,,,,,
‘ওগো পরী জানো!? পৃথিবীর সব সুখ আজ আমাদের দুজনের মনে’……….

আরও গল্প : আজ আমার স্বামীর গায়ে হলুদ

Story: Happiness, husband wife love story by sharmin rahman. #Love #BanglaLoveStory #Joy #BanglaGolpo

আপনার রেটিং দিন

0%

প্রিয় পাঠক-পাঠিয়া, লেখিকার গল্পটি পড়ে আপনার কাছে কেমন লেগেছে তা আমাদেরকে জানাতে ১-৫ লাভ বাটনে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার রেটিং জমা দিন যেখানে প্রথম লাভ হচ্ছে সর্বনিম্ন এবং ৫ লাভ হচ্ছে সর্বোচ্চ রেটিং।

আরও গল্প দেখুন
User Rating: 4.31 ( 9 votes)

About Syed Rubel

Creative writer and editor of amar bangla post. Syed Rubel create this blog in 2014 and start social bangla bloggin.

Check Also

স্ত্রীর পরশে

স্ত্রীর পরশে বদলে গেলো স্বামী (ছোট্ট গল্প)

এক স্ত্রী গভীর রাতে প্রতিদিন স্বামীর পাশ থেকে ঘুম থেকে উঠে আধা ঘন্টা এক ঘন্টার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Optimization WordPress Plugins & Solutions by W3 EDGE